ব্রেকিং নিউজ

পাটের বহুমুখী ব্যবহারে সরকারের উদ্যোগ প্রশংসনীয়: রাষ্ট্রপতি

editor ৭ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ জাতীয়

কালের কাগজ ডেস্ক:০৫ মার্চ ২০১৯,মঙ্গলবার।

পাটজাত পণ্যের বহুমুখী ব্যবহার নিশ্চিত করা গেলে পরিবেশ সুরক্ষার পাশাপাশি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে তা ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে এমন আশা প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ। তিনি বলেন, ‘পাটের জীবনরহস্য উদঘাটনসহ পাটের বহুমুখী ব্যবহারে সরকারের এ সকল উদ্যোগ অত্যন্ত প্রশংসনীয়। পাটশিল্প বিকাশের স্বার্থে দেশের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বাজারেও পরিবেশবান্ধব পাটজাত পণ্যের চাহিদা সৃষ্টিতে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে।’

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সকল সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এ লক্ষ্যে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করবে এমন আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘এতে পাট চাষিদের পাটের ন্যায্য মূল্য প্রাপ্তি নিশ্চিত হবে এবং পাট ও পাটজাত পণ্যের বাজার সম্প্রসারণ ও পাটখাতের উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধি লাভ করবে।’

বুধবার জাতীয় পাট দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার দেয়া এক বাণীতে রাষ্ট্রপতি এ কথা বলেন।

আবদুল হামিদ বলেন, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে তৃতীয়বারের মতো ‘জাতীয় পাট দিবস-২০১৯’ উদযাপিত হচ্ছে। পাটের সাথে বাংলাদেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতি অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত। এ দেশের সংস্কৃতি ও কৃষ্টির সাথে মানানসই পাট ও পাটজাত পণ্য দেশে যেমন গুরুত্বের দাবিদার, তেমনি বিশ্ব বাজারেও এটি একটি অনন্য পরিবেশবান্ধব পণ্য হিসেবে সমাদৃত।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকার রাষ্ট্রীয় পাটকলসমূহের আধুনিকায়নসহ পাটখাতের অতীত গৌরব ফিরিয়ে আনতে নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। অভ্যন্তরীণ চাহিদা বৃদ্ধির জন্য ইতোমধ্যে “পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন, ২০১০” এবং “পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার বিধিমালা, ২০১৩” কার্যকর করা হয়েছে।’

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘পাটজাত পণ্যের বহুমুখীকরণের জন্য পাট পাতা থেকে পানীয়, পাটের আঁশ থেকে ভিসকস ও পচনশীল পরিবেশবান্ধব সোনালি ব্যাগ, জিও জুট টেক্সটাইল, পাটকাঠি থেকে চারকোলসহ ২৫০ প্রকারের পাটজাত পণ্য উদ্ভাবন ও বাজারজাতকরণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।’

সম্প্রতি সংবাদ