শপথ নিয়ে গণ মানুষের সঙ্গে বেইমানি করেছে বিএনপি, বললেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা

editor ৭ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ জাতীয়

কালের কাগজ ডেস্ক:০৬ মে-২০১৯,সোমবার।

বিএনপি সংসদে যোগদান করে ক্ষমতাসীনদের ইচ্ছা পূরণ করে গণ মানুষের আকাঙ্ক্ষার সঙ্গে বেইমানি করেছে বলে মনে করছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের একাধিক নেতা। বিএনপির এমন আত্মঘাতী ও প্রবঞ্চনামূলক সিদ্ধান্তে ঐক্যফ্রন্ট তথা রাজনীতিতে আস্থা হারাবে জনগণ বলেও মনে করছেন তারা।

ঐক্যফ্রন্টের একাধিক সিনিয়র নেতার সাথে একান্ত আলাপকালে বিএনপির বিভ্রান্তিকর রাজনীতির বিষয়ে জানা গেছে।

ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য আবদুল মালেক রতন বিএনপির এ সিদ্ধান্তকে দেখছেন ‘বিশ্বাসঘাতকতা’ হিসেবে। তিনি ক্ষোভ নিয়েই বলেন, আজকে বিএনপির যে পাঁচজন দালালি করতে সংসদে গেছেন, তাদের দালালির কারণে কোনও দিনই এই দেশে গণতন্ত্র, ভোটাধিকার, প্রগতির আন্দোলন ক্ষতিগ্রস্ত করা যাবে না। বিএনপি সরকারের উপর অনাস্থা দেখিয়ে আবার সেই সরকারের কাছেই নতি স্বীকার করেছে। এটি মূলত প্রতারণা ও প্রবঞ্চনার রাজনীতি।

তিনি আরো বলেন, বিএনপির দৈন্যদশা প্রকাশ পেয়েছে শপথ প্রসঙ্গে। পুরো রাজনৈতিক পরিবেশ নষ্ট করেছে বিএনপি। বিএনপির এমন ভুল সিদ্ধান্তে কারণে মানুষ রাজনীতিতে আস্থা হারাবে। বিএনপিকে কোন অর্থেই আদর্শিক রাজনৈতিক দল বলা যাবে না।

বিএনপির সংসদে যোগদানকে রাজনৈতিক নষ্টামির সঙ্গে তুলনা করে গণফোরামের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টু বলেন, বিএনপির অবস্থান গণ মানুষের আকাঙ্ক্ষার বিরুদ্ধেই গেছে। বিএনপি ঐক্যফ্রন্ট তথা দলীয় নেতা-কর্মীদের নার্ভ বুঝতে ব্যর্থ হয়েই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তিনি আরো বলেন, বিএনপির কথাবার্তার মধ্যে কোনও ধরণের মিল নেই। তারা একটি সিদ্ধান্ত নেয়, কিন্তু লন্ডন থেকে বার্তা আসলে সব পাল্টে যায়। তাদের এই আচরণে আমি মর্মাহত। তাদের এই আচরণের নিন্দা জানানোর ভাষাও আমি খুঁজে পাচ্ছি না।
শপথ নিয়ে সরকারকে বৈধতা দিয়ে বিএনপি যদি এখন সরকারবিরোধী আন্দোলনে নামে তবে সেটি গ্রহণযোগ্য হবে না, বরং তাদের দ্বি-মুখী অবস্থান আগামীতে আরো বড় বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন তারা।

সম্প্রতি সংবাদ