ইফতারির দাওয়াত না দেয়ায় খেপেছেন গয়েশ্বর চন্দ্র রায়!

editor ৭ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ জাতীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক:১২মে-২০১৯,রবিবার।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শপথ নেয়া না নেয়া নিয়ে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের সঙ্গে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুলের দ্বন্দ্বে দলের অভ্যন্তরে বিভক্তি স্পষ্ট হয়েছে। এবার ইফতার পার্টির দাওয়াত নিয়ে নতুন দ্বন্দ্বে জড়িয়েছেন মির্জা ফখরুল ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

আদর্শিক দ্বন্দ্বের কারণে ইফতার পার্টিতেই দেখা যাচ্ছে না গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে, এমন গুঞ্জন এখন বাস্তবতায় রূপ নিয়েছে। শোনা যাচ্ছে, মূলত মির্জা ফখরুলের সঙ্গে শপথ নিয়ে অসদাচরণ করার কারণেই গয়েশ্বরকে কোনো ইফতার পার্টিতে ডাকছে না বিএনপি।

বিভিন্ন দায়িত্বশীল সূত্রের বরাতে জানা গেছে, বিএনপির পক্ষ থেকে আগামী ১৪ মে পাঁচ তারকা হোটেল ওয়েস্টিনে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। এই ইফতার আয়োজন করা হয়েছে বিদেশি কূটনীতিকদের জন্য। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নামে ওয়েস্টিনের বলরুম বুক দেওয়া হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়া জেলে থাকার পরেও ওয়েস্টিন হোটেলে কূটনীতিকদের ইফতার আয়োজন করায় বিএনপির মধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে। দাওয়াত কার্ডে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের নাম না থাকায় ইফতারের গ্রহণযোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে বিএনপি শিবিরে। এছাড়া, ইফতারের নামে মহাযজ্ঞের এতো টাকা বিএনপি পায় কোথায়? বিএনপির স্থায়ী কমিটির অনেকেই এ ইফতার মাহফিল বাতিলের দাবি জানিয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, মির্জা ফখরুলের সঙ্গে শপথের ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটার পর থেকে কোনো কথাই হচ্ছে না। তিনি আমাকে কোনো ইফতার মাহফিলে ডাকছেন না।

ওয়েস্টিনের বলরুমে বুক দেবার বিষয়ে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, যদি ইফতার করতে হয় তাহলে যে সমস্ত নেতা-কর্মীরা আটক হয়ে কারাগারে দুর্বিষহ জীবন-যাপন করছে তাদের পরিবারকে নিয়ে মহানগর নাট্যমঞ্চ বা যে কোনো একটি সাধারণ জায়গায় ইফতার করা যেতে পারে। কিন্তু ওয়েস্টিনের মতো বিলাসবহুল জায়গায় এই মূহুর্তে মির্জা ফখরুল কেন ইফতার আয়োজন করেছেন? তিনি এতো টাকা কোথায় পান।

একই রকম মতবাদ ব্যক্ত করেছেন বিএনপির স্থায়ী আরও দুই সদস্য নজরুল ইসলাম খান এবং মির্জা আব্বাস। স্থায়ী কমিটিতে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং ড. মইন খান ছাড়া সবাই ওয়েস্টিনে ইফতারের বিরুদ্ধে বলে জানা গেছে। এই ইফতার পার্টি নিয়ে বিএনপিতে নতুন করে মেরুকরণ সৃষ্টি হতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন দলটির একাধিক সিনিয়র নেতা।

সম্প্রতি সংবাদ