২০৩০ সালের মধ্যে মাথাপিছু আয়ে ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ

editor ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ বানিজ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক: ১৪ মে ২০১৯ ,মঙ্গলবার।

যত দিন যাচ্ছে ততই এশিয়া মহাদেশের অন্যতম অর্থনৈতিক ভাবে শক্তিশালী দেশ হিসেবে আবির্ভূত হতে চলেছে বাংলাদেশ। দীর্ঘ সময় ধরে একই রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় থাকা, দেশে বিদ্যমান রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, যোগোপযোগী উন্নয়ন কর্মকাণ্ড, অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে শিল্প বিপ্লব ইত্যাদির সুফল পাচ্ছে বাংলাদেশ। ফলশ্রুতিতে বেড়ে চলেছে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয়। সম্প্রতি বহুজাতিক স্টান্ডার্ড চার্টার্ড (স্ট্যানচার্ট) ব্যাংকের এক গবেষণায়ও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রার কথা অর্থনৈতিক সম্ভাবনার চিত্র ফুটে উঠেছে। স্ট্যানচার্টের প্রধান অর্থনীতিবিদ ডেভিড ম্যান ও ব্যাংকের ভারতীয় গবেষণা শাখার প্রধান মধুর ঝা এ গবেষণা পরিচালনা করেছেন।

গবেষণায় জানানো হয়, মাথাপিছু আয়ের হিসেবে আগামী এক দশকে ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ। ব্যাংকটি বলছে, বর্তমানে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ১,৬০০ ডলার ২০৩০ সালে এই আয় দাঁড়াবে ৫,৭০০ ডলার। অন্যদিকে বর্তমানে ভারতে মাথাপিছু আয় ১,৯০০ ডলার কিন্তু ২০৩০ সালে হবে ৫,৪০০ ডলার যা বাংলাদেশের থেকে ৩০০ ডলার কম।

স্ট্যানচার্ট ব্যাংকের উক্ত গবেষণায় বলা হয়েছে ২০৩০ সালের মধ্যে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ঘটবে সবচেয়ে বেশি, কারণ এসব দেশের লোকসংখ্যা হবে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার এক পঞ্চমাংশ। সেক্ষেত্রে বিশাল জনসংখ্যা ভারতের জন্য আশীর্বাদ হয়ে দাঁড়াবে। অন্যদিকে স্বাস্থ্য ও শিক্ষাখাতের বিনিয়োগ থেকে সুফল পেতে শুরু করবে বাংলাদেশ যা তাদের উৎপাদনশীলতা বাড়াতে সাহায্য করবে।

গবেষণায় আরো বলা হয়েছে, ২০২০ সাল হবে এশিয়ানদের যুগ। পুরো দশক ধরে এশিয়ার দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি ৭ শতাংশ বজায় থাকবে। বিশেষ করে বাংলাদেশ, ভারত, ভিয়েতনাম, মিয়ানমার ও ফিলিপাইনে প্রবৃদ্ধির ধারা অব্যাহত থাকবে।

এশিয়াতে এই পরিবর্তন ঘটতে শুরু করেছে ২০১০ সাল থেকে। তখন থেকেই স্ট্যানডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক এশিয়ার এই দেশগুলোর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির উপর নজর রাখতে শুরু করে বলে গবেষণায় বলা হয়েছে।

গত এক দশকে বাংলাদেশের বিস্ময়কর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি লক্ষ্য করা গেছে। গত এক দশকে সাত শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের অর্থনৈতিক দেশের মর্যাদায় অভিষিক্ত করেছে।

সম্প্রতি সংবাদ