১৭ ও ২২ মে থেকে শুরু হচ্ছে বাস-রেলের টিকিট বিক্রি

editor ৭ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ জাতীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক: ১৭ মে ২০১৯ ,শুক্রবার।
প্রতিবছরের মতো এবারো মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে আগামী ২২ মে থেকে ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু করবে বাংলাদেশ রেলওয়ে। ২২ মে থেকে শুরু হওয়া এই টিকিট বিক্রি চলবে ২৬ মে পর্যন্ত। এর পাশাপাশি আগামী ১৭ মে থেকে ৩০ মে পর্যন্ত চলবে বাসের টিকিট বিক্রি। তবে বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকিট বিক্রির ক্ষেত্রে কিছু পরিবর্তন এসেছে। আগে ঈদের টিকিট শুধুমাত্র রেলওয়ের কাউন্টারে পাওয়া যেতো। এতে করে অনেক যাত্রী সারা দিন রাত রেলওয়ে স্টেশনে অপেক্ষা করেও ট্রেনের টিকিট পেতেন না। এতে করে অনেকের বাড়িতে ঈদ না করার আক্ষেপে ক্ষোভ তৈরি হতো। তবে এবারের রেলওয়ের পরিবর্তন হলো- কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ছাড়াও আরো পাঁচটি স্থান থেকে পাওয়া যাবে রেলের টিকিট। স্থানগুলো হলো- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি), ফুলবাড়িয়া, মিরপুর, কমলাপুর, বিমানবন্দর রেলস্টেশন ও গাজীপুরের জয়দেবপুর। এতে করে সকলেই রেলের টিকিট পাবে বলে আশা করছে রেল মন্ত্রণালয়। তবে বাসের টিকিটের ক্ষেত্রে বাস টার্মিনাল থেকেই টিকিট সংগ্রহ করতে হবে যাত্রীদের।
বাংলাদেশ বাস ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান রমেশ চন্দ্র ঘোষ বলেন, ‘৫ বা ৬ তারিখ ঈদের দিন ধরে আমরা ১৭ মে শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যের বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগে আসলে আগে পাবেন ভিত্তিতে পরিবহন মালিকরা তাদের টিকিট বিক্রি করবেন। টিকিট বিক্রি হবে ৩০ মে পর্যন্ত।’
অপরদিকে, মহাখালী বাস মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কালাম বলেন, ‘অগ্রিম টিকিট ছাড়ার দিন-তারিখের বিষয়ে এখনও আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত না হলেও আমরাও ১৭ মে থেকে বিক্রি শুরু করতে পারি। খুব দ্রুত এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’
বাংলাদেশ বাস ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান রমেশ ঘোষ বলেন, ‘ঢাকার গাবতলী, মাজার রোড, কল্যাণপুর, শ্যামলী, কলেজগেট ও কলাবাগান এলাকায় বিভিন্ন পরিবহনের কাউন্টার থেকে এসব টিকিট বিক্রি হবে। আগামী ৩০ মে থেকে অগ্রিম টিকিটের বাসগুলো নির্ধারিত গন্তব্যে যাত্রা শুরু করবে। আমরা প্রত্যেকটি গাড়ির দুটি টিকিট হাতে রেখে বাকি সব টিকিট বিক্রি করে দেবো।’
শ্যামলী, হানিফ, সোহাগ, গ্রিনলাইন, এস আর, নাবিল, ঈগল, এনা, দেশ ট্রাভেলস, আগমনী এক্সপ্রেসসহ প্রায় পঁচিশটি বড় পরিবহন কোম্পানির বাসেরও অগ্রিম টিকিট বিক্রি করা হবে বলে জানান রমেশ ঘোষ।
প্রসঙ্গত রাজশাহী, রংপুর, খুলনা ও বরিশাল- এ চারটি বিভাগের বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী বাসের টিকিট বিক্রি হয় রাজধানীর গাবতলী ও আশপাশের এলাকা থেকে।
এদিকে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন জানান, আগামী ২২ মে থেকে ঈদের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হবে, চলবে ২৬ মে পর্যন্ত। তিনি বলেন, ‘দুর্ভোগ কমাতে কমলাপুর ছাড়াও পাঁচটি স্থান থেকে অগ্রিম টিকিট বিক্রি করা হবে। কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ও বিমানবন্দর স্টেশন ছাড়াও তেজগাঁও, বনানী এবং ফুলবাড়িয়া থেকে এই টিকিট পাওয়া যাবে। কোনও যাত্রীকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে না। এ বছর ৫০ ভাগ টিকিট অ্যাপের মাধ্যমে বিক্রি হবে।’
সচিব বলেন, ‘সরকার রেলের ব্যাপক উন্নয়ন করছে। উন্নয়নের সুফল ও যাত্রীসেবা নিশ্চিত করতে যা যা করা দরকার, তাই করবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা ঈদের সম্ভাব্য তারিখ ৫ জুন ধরেছি। এই হিসাবে আগামী ২২ মে পাওয়া যাবে ৩১ মে’র টিকিট, ২৩ মে পাওয়া যাবে ১ জুনের টিকিট, ২৪ মে পাওয়া যাবে ২ জুনের টিকিট, ২৫ মে পাওয়া যাবে ৩ জুনের টিকিট এবং ২৬ মে পাওয়া যাবে ৪ জুনের টিকিট।’ তিনি জানান, রেলের ফিরতি টিকিট বিক্রি হবে ২৯ মে থেকে। এদিন পাওয়া যাবে ৭ জুনের টিকিট। ৩০ মে বিক্রি হবে ৮ জুনের টিকিট। ৩১ মে বিক্রি হবে ৯ জুনের টিকিট। ১ জুন বিক্রি হবে ১০ জুনের টিকিট এবং ২ জুন বিক্রি হবে ১১ জুনের টিকিট।
সচিব আরও জানান, এই ঈদে ছয়টি স্পেশাল ট্রেন ছাড়া হবে। এগুলো ২ থেকে ৪ জুন ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে ছাড়া হবে এবং ঈদের পরে ৬ থেকে ১২ জুন বিভিন্ন গন্তব্য থেকে ঢাকায় আসবে।

সম্প্রতি সংবাদ