ব্রেকিং নিউজ

ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের অসহায় শিক্ষার্থীদের মেস-বাসা ভাড়া মওকুফের উদ্যোগ

editor ৮ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

মুুক্তার হাসান, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ঃ১১ মে-২০২০,সোমবার
করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন। এতে মেস এবং বাসা ভাড়া নিয়ে বিপাকে পড়েছে অসহায় শিক্ষার্থীরা। মেস বা বাসায় না থাকলেও নিয়মিত মাসিক ভাড়া পরিশোধ করতে হচ্ছে তাদের। তবে অসহায় ও গরিব শিক্ষার্থীদের মেস-বাসা ভাড়া মওকুফের জন্য উদ্যোগ নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন।
বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা দাবি জানান পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭০ থেকে ৮০ ভাগ শিক্ষার্থী নিম্নবিত্ত বা নিম্নমধ্যবিত্ত। বেশির ভাগ শিক্ষার্থী টিউশন বা কোচিং এ ক্লাস নিয়ে নিজেদের পড়ালেখার খরচ চালায়। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থী নিজ নিজ বাসায় অবস্থান করছে। দেশের এই ক্রান্তিকালে সকল শিক্ষার্থীদের টিউশন নেই। যার ফলে বাড়ি ভাড়া দেয়া কষ্টসাধ্য হয়ে পরেছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স এন্ড রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতা মানিক শীল বলেন সাধারন শিক্ষার্থীদের পক্ষ আমরা কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেছি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আশ্বস্ত করেছে আমাদের। আর্থিকভাবে অসচ্ছলদের ভাড়া মওকুফের জন্য সুপারিশ করবে। বাড়িওয়ালা মওকুফ না করলেও বিশ্ববিদ্যালয় ও টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন আর্থিক সহায়তা প্রদান করবে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুড টেকনোলজি এন্ড নিউট্রিশনার সাউন্স বিভাগের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নিবির পাল বলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী কোচিং বা টিউশনি করে নিজে নিজে চলেন। আবার বাড়িতেও টাকা পাঠায়। অধিকাংশ শিক্ষার্থীর পক্ষে বর্তমানে মেস-বাসা ভাড়া দেওয়া সম্ভব নয়।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. সিরাজুল ইসলাম বলেন কোন অসচ্ছল শিক্ষার্থী যদি বাসা বা মেস ভাড়া দিতে না পারে তাহলে স্ব স্ব বিভাগের চেয়ারম্যানের মাধ্যমে আবেদন করলে সেটার বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ভাড়ার বিষয়ে ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ স্থানীয় এমপিসহ প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করেছে। তিনি আরো বলেন প্রতিটি বিভাগের শিক্ষকরা নিজ উদ্যোগে দরিদ্র ছাত্রছাত্রীদের আর্থিক সাহায্য করতেছেন।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আলাউদ্দিন বলেন শিক্ষার্থীদের মেস-বাসা ভাড়ার বিষয়টি স্থানীয় এমপি ও প্রশাসনকে অবহিত করেছি। মেস ও বাসার মালিকদের অনুরোধ করা হয়েছে। যাতে তারা ভাড়া মওকুফ করেন।
এবিষয়ে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলাম বলেন গরিব ছাত্রছাত্রী এবং মেস বাসার মালিকদের তালিকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমাদের প্রেরণ করলে আমরা প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেবো।
এদিকে টাঙ্গাইলের শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ ও বঙ্গের আলীগড় খ্যাত সরকারি সা’দত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ছাত্রছাত্রীরাও তাদের মেস ও বাসা বাড়া মওকুফের দাবি করেছেন।

মুুক্তার হাসান

সম্প্রতি সংবাদ