ব্রেকিং নিউজ

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌ-রুটে ঢাকা পথে কর্মমূখী মানুষের ঢল!

editor ১১ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ breaking সারাদেশ

আবুল হোসেন গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি :২৯ মে-২০২০,শুক্রবার।

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌ-রুটে, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে স্বজনদের সাথে ঈদ উদযাপন শেষে রাজধানীসহ তার আশপাশের বিভিন্ন জেলায় কাজে যোগ দিতে শ্রমজীবী মানুষের ঢল নেমেছে। করোনা সংক্রমনের ঝুঁকি নিয়ে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট থেকে প্রতিটা ফেরিতে উপচে পড়া ভিড় নিয়ে পাটুরিয়ার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাচ্ছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে এ ভিড় জন সুমুদ্রে পরিনত হয়।
২৯ মে শুক্রবার দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে গিয়ে দেখা যায় ভোর থেকেই দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌ-রুটে কর্মস্থলমূখী শ্রমজীবী মানুষের উপচে পড়া ভিড়, বেলা বাড়ার সাথে সাথে এ ভিড় জনসুমুদ্রে পরিণত হয়। গন-পরিবহন বন্ধ থাকলেও জীবন ও জীবিকার তাগিদে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে হাজার হাজার শ্রমজীবী মানুষ করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়ে চাকরী বাঁচাতে গাদাগাদি করে মাইক্রো, প্রাইভেটকার, ব্যাটারি চালিত অটোবাইক, মোটরসাইকেল ও মাহেন্দ্রযোগে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে দৌলতদিয়া ঘাটে এসে নদী পার হয়ে ঢাকাসহ আশপাশের বিভিন্ন জেলায় কর্মস্থলে যোগ দিতে যাচ্ছে। দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে শ্রমজীবী মানুষের মাঝে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ ও রাজবাড়ী জেলা ট্রাফিক পুলিশের ব্যাপক তৎপরতা লক্ষ করা গেছে।

পোশাক কারখানার শ্রমিক নাজমা আক্তার জানান, পরিবারের সাথে ঈদ উদযাপন করে ঢাকায় ফিরছি, গণপরিবহন বন্ধ থাকায় যানবাহন বদলে ছোট গাড়ীতে করে অনেক গাদাগাদি করে তিনগুন বেশী ভাড়া দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে ঘাটে এসে পৌঁছায়েছি। করোনার ভয়ে কাজে যোগ না দিয়ে ঘরে বসে থাকলে খাব কি, ঘরে বসে থাকলে তো আর ভাত পেটে যাবে না, কাজ করেই খেতে হবে কাজেই করোনা নিয়ে ভাবার সময় এখন আর নাই। অফিস দুইদিন আগে খুলেছে, এখনো অফিসে যেতে পারিনি, চাকরী আছে কি-না সন্দেহ। চাকরী না থাকলে ছেলে মেয়েদের নিয়ে পথে বসতে হবে।

স্বপরিবারে ঢাকায় কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে বের হওয়া বেসরকারী সংস্থার কর্মকর্তা ইলিয়াজ হোসেন জানান, অফিস থেকে বার বার ফোন দিচ্ছে যাওয়ার জন্য, এখন যদি না যাই তাহলে চাকরী থাকবেনা। চাকরী চলে গেলে কি করে বাঁচবো। করোনায় সরকারের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থবিধি না মেনেই গাদাগাদি করে বিভিন্ন যানবাহনে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে এ ঘাট থেকে ফেরিতে করে ঢাকায় যেতে হচ্ছে।এদিকে ব্যাক্তি গত গাড়ি এবং মটরসাইকেলের চাপ বেশি থাকায় পণ্য বাহী ট্রাকের দীর্ঘ সিরিয়াল দেখা যায় ।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্পোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) আবু আব্দুল্লাহ রনি জানান, এই নৌপথে ছোট বড় মিলিয়ে ১৪ টি ফেরি রয়েছে। এর মধ্যে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে আজ ভোর থেকেই যাত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ থাকার কারণে ৯টি ফেরি চলাচল করছে। যাত্রীর সাথে পণ্যবাহী পরিবহন যুক্ত হলে ফেরির সংখ্যা বৃদ্ধি করা হবে।
গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশিকুর রহমান জানান,গণপরিবহন বন্ধ থাকার পরেও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদ্বার দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে ঢাকা গামী যাত্রীদের ভীড় বেড়েছে, তাদের নিরাপত্তার সার্থে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি এবং আমাদের এ কর্মকান্ড অব্যহত থাকবে।

সম্প্রতি সংবাদ