ব্রেকিং নিউজ

কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধির খবরে আতঙ্কিত শেরপুর এলাকার নদীবর্তী মানুষ

editor ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

মৌলভীবাজার প্রতনিধিঃ২১ জুলাই-২০২০
উজানে অঝর ধারায় বৃষ্টি হচ্ছে। কুশিয়ারা নদীতে বাড়ছে পানি। এই নদীতে আরও পানি বাড়ার সংবাদে কুশিয়ারা তীরবর্তী মৌলভীবাজার সদর উপজেলার শেরপুর এলাকার মানুষের মাঝে বন্যা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এ দিকে কুশিয়ারা নদীর তীররক্ষা বাঁধের বাইরে বসবাস পাঁচটি গ্রামের দুই শতাধিক পরিবারের মানুষকে মালামালসহ নিরাপদ আশ্রয়ে যাওয়ার জন্য গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে মাইকিং করে সতর্ক করা হয়েছে ।
জানা যায়, ভারতের বরাক উপত্যকায় প্রচুর পরিমানে বৃষ্টি হওয়ায় কয়েক ঘন্টা পরে কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদসীমার অনেক ওপর দিয়ে প্রবাহিত হতে পারে। মৌলভীবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে এ খবর পেয়ে স্থানীয় খলিলপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিভিন্ন মসজিদের মাইকে প্রচার করিয়েছেন তীররক্ষা বাঁধের বাইরে বসবাস করা ব্রাহ্মণগ্রাম, নতুনবস্তি, হামরকোণা, দাউদপুর ও বাহাদুরপুর গ্রামের লোকজনকে মালামাল সরিয়ে নিরাপদ আশ্রয়ে যাওয়ার জন্য। অন্যদিকে গতকাল মঙ্গলবার দুপুর থেকে সন্ধ্যার দিকে কুশিয়ারা নদীর পানি ৬ সে.মি বেড়ে বিপদসীমার ২৫ সে.মি নিচে রয়েছে। ফলে বাঁধ উপচে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করছে। এতে অনেকের বসত ঘর পানিতে আক্রান্ত হচ্ছে।
মৌলভীবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বণেন ইন্দ্র চক্রবর্তী জানিয়েছেন ভারতের বরাক উপত্যকায় তীব্রমাত্রায় বৃষ্টিপাত হচ্ছে। সেই পানি নেমে কুশিয়ারার পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হতে পারে। এতে নদীর তীররক্ষা বাঁধের বাইরে বসবাস করা লোকজনের ঘর বাড়ি পানিতে নিমজ্জিত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। তিনি আরও জানান সদর উপজেলার শেরপুর এলাকায় কুশিয়ারা নদীর তীরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাঁধ না থাকায় শেরপুর এলাকায় আপদকালীন সময়ে কোন বরাদ্দ দেওয়া যাচ্ছে না।
স্থানীয় খলিলপুর ইউপি চেয়ারম্যান অরবিন্দ পোদ্দার বাচ্চু মোবাইল ফোনে জানান কুশিয়ারা নদীতে পানি বৃদ্ধির খবর পেয়ে নদী তীরবর্তী জলমগ্ন মানুষকে মাইকিং করে নিরাপদ আশ্রয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

সম্প্রতি সংবাদ