ব্ল্যাকমেইল করে বন্ধুর স্ত্রীকে ৮ মাস ধরে তিনজনের পালাক্রমে ধর্ষণ

editor ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

গাজীপুর  প্রতিনিধি :২৬ আগস্ট ২০২০,

গাজীপুরের কাপাসিয়ার সাবরেজিস্ট্রি অফিসের দলিল লেখক মাহফুজুর রহমান রাসেল মোল্লা (৪০) তার সহকারীর স্ত্রীকে ব্ল্যাকমেইল করে তিন বন্ধু মিলে আট মাস যাবত পর্যায়ক্রমে ধর্ষণ করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে কাপাসিয়া উপজেলা সদরের সাফাইশ্রী গ্রামে।

বুধবার ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে সাফাইশ্রী গ্রামের মফিজ উদ্দিন মোল্লার পুত্র রাসেল মোল্লাসহ অভিযুক্ত অপর দুই বন্ধু একই গ্রামের মৃত শুক্কুর আলীর পুত্র গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবসায়ী খাইরুল আলম সবুজ (৩৮) ও মৃত আবুল হোসেনের পুত্র দলিল লেখক জাকির হোসেন সোহেলকে (৩৯) আসামি করে কাপাসিয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পরে ওই গৃহবধূকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, দলিল লেখক মাহফুজুর রহমান রাসেল মোল্লার সঙ্গে তার বন্ধু গত প্রায় দুই বছর যাবত শিক্ষানবিস সহকারী হিসেবে কাজ করছেন। সেই সুবাদে গত বছরের ৩ ডিসেম্বর রাতে রাসেল মোল্লা সুযোগ বুঝে তার ওই সহকারীর বাড়িতে যায়। সহকারী বাড়িতে না থাকায় অপেক্ষার এক পর্যায়ে তার স্ত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে এবং কৌশলে তা মোবাইলে ভিডিও করে রাখে।

এক পর্যায়ে ওই ধারণকৃত ভিডিও দেখিয়ে গৃহবধূকে ব্ল্যাকমেইল করে অপর দুই বন্ধুর সঙ্গে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে মেলামেশায় বাধ্য করে। তাদের কথামতো না চললে ফেসবুকসহ বিভিন্ন জায়গায় তা প্রচার করে মানসম্মান এমনকি সংসার নষ্ট করবে বলে হুমকি দেয়।

বিগত ২২ জুলাই রাতে ধর্ষক সবুজ ওই গৃহবধূর বাড়িতে যায় এবং জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে বিষয়টি গৃহবধূর স্বামী জানতে পারে। গত সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে আলোচিত ওই তিন বন্ধু মিলে গৃহবধূর বাড়িতে গিয়ে ধর্ষণের ভিডিও প্রকাশ ও প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

এদিকে অভিযুক্ত রাসেল মোল্লা, খাইরুল আলম সবুজ ও জাকির হোসেন সোহেলের মোবাইল বন্ধ থাকায় তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে মামলার বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, তদন্তপূর্বক আসামিদের গ্রেফতার করা হবে। ওই গৃহবধূকে পুলিশ হেফাজতে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।

সম্প্রতি সংবাদ