ব্রেকিং নিউজ

কালুখালীতে ৭ ইউপিতে আওয়ামী লীগের একযোগে সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে মানববন্ধন\ সাংবাদিক সম্মেলন

editor ৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

 মোক্তার হোসেন, পাংশা (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি :০৭ সেপ্টেম্বর-২০২০,সোমবার।

রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলাতে সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে আওয়ামী লীগ। সে লক্ষ্যে সর্বস্তরের জনগণকে উদ্ধুদ্ধ ও গণআন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও রাজবাড়ী-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. জিল্লুল হাকিমের নির্দেশনায় কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে সোমবার একযোগে সাতটি ইউনিয়নে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।
জানা যায়, সোমবার দুপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুল হাকিম এমপির জ্যেষ্ঠ পুত্র ও জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আশিক মাহমুদ মিতুলের সহযোগিতায় কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া, কালিকাপুর, বোয়ালিয়া, মদাপুর, মাঝবাড়ী, মৃগী ও সাওরাইল ইউনিয়নে একযোগে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। কালুখালীর সাতটি ইউনিয়নে প্রায় ১৪ হাজার নারী-পুরুষ এ মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করে।
পরে কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের আয়োজনে এক সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সাংবাদিক সম্মেলনে কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কালিকাপুর ইউপির চেয়ারম্যান অতিউর রহমান নবাব লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। সাংবাদিক সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে কালুখালী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আলিউজ্জামান (টিটো চৌধুরী), পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদ, পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মাছপাড়া ইউপির চেয়ারম্যান খোন্দকার সাইফুল ইসলাম (বুড়ো), পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অবসরপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. এ.এফ.এম শফিউদ্দীন (পাতা), পাংশা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও পাংশা উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক জালাল উদ্দিন বিশ্বাস, কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সদস্য খায়রুল ইসলাম খায়ের, ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ ও আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
সাংবাদিক সম্মেলনে রাজবাড়ী-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. জিল্লুল হাকিম টেলি কনফারেন্সে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন- সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জিরো টলারেন্স রয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় কালুখালী উপজেলাতে আমরা একটি কর্মসূচির আয়োজন করি। কিন্তু প্রশাসন সেই কর্মসূচিতে নগ্ন হস্তক্ষেপ করেছে। পুলিশ জনগণের বন্ধু, কিন্তু এই কর্মসূচি বানচালের জন্য কিছু কিছু পুলিশ সদস্য ষড়যন্ত্র করছে। কাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য পুলিশ কাজ করছে সেটা খতিয়ে দেখতে হবে। কিছু দুর্নীতিবাজ পুলিশ সদস্য পুরো পুলিশ বাহিনীকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। তারা জামাত-শিবির ও বিএনপির সন্ত্রাসীদের প্রশ্রয় দিচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
বীর মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুল হাকিম এমপি বলেন, মাঝবাড়ী ইউনিয়নের বেতবাড়ীয়া গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান যুবলীগের সদস্য রবিউল ইসলাম হত্যাকান্ডে জড়িতদের দ্রæত গ্রেফতার ও শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। তবে এই হত্যাকান্ড নিয়ে পুলিশ যেন ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে না পারে সেই দিকটা গুরুত্বের সাথে দেখতে হবে।
এদিকে, সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কালিকাপুর ইউপির চেয়ারম্যান আতিউর রহমান নবাব বলেন, প্রিয় প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কালুখালী উপজেলা শাখার পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা গ্রহণ করুন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংগ্রামী সভাপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে সর্বস্তরের জনগনকে উদ্বুদ্ধ করে গণআন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানিয়েছেন।
জননেত্রী শেখ হাসিনা সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত বাংলাদেশ তথা ক্ষুধামুক্ত ও দারিদ্রমুক্ত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। তারই আহবানে সারা দিয়ে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সংগ্রামী সভাপতি বার বার নির্বাচিত সংসদ সদস্য গণমানুষের নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. জিল্লুল হাকিম সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে দৃঢ় অবস্থান গ্রহণ করেছেন। তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকায় সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে জনগণকে সম্পৃক্ত করে তীব্র গণআন্দোলন গড়ার জন্য দলীয় কর্মীদের নির্দেশ প্রদান করেছেন। রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আশিক মাহমুদ মিতুলের সার্বিক সহযোগীতায় বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কালুখালী উপজেলা শাখা করোনাকালীন সময়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি যথাযথ পালন করে সন্ত্রাস ও মাদক বিরোধী মানববন্ধন করার জন্য সোমবার কালুখালী উপজেলা সদরে এক শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজনের উদ্যোগ গ্রহণ করে। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসনের নগ্ন হস্তক্ষেপের ফলে উক্ত কর্মসূচি স্থগিত করতে বাধ্য হই।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কালুখালী উপজেলা শাখার উদ্যোগে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন কর্মসূচি বন্ধ করার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপের তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করছি এবং ভবিষ্যতে এমন জনবিরোধী কর্মকান্ড থেকে বিরত থাকার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।
এখানে উল্লেখ্য যে, করোনা ভাইরাস সংক্রমনের শুরু থেকে অদ্যবধি রাজবাড়ীর গণমানুষের নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. জিল্লুল হাকিম এমপি এবং রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য আশিক মাহমুদ মিতুল পাংশা, কালুখালী এবং বালিয়াকান্দি তথা রাজবাড়ী জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে জনগণের পাশে সার্বক্ষণিকভাবে অবস্থান গ্রহণ করে অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ, শিশু খাদ্য বিতরণ, অসুস্থ্য মানুষের জন্য ভ্রাম্যমান মেডিকেল টিম গঠন করে সেবা প্রদান এবং করোনা সংক্রমন প্রতিরোধের জন্য চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ বাহিনীর সদস্য, সাংবাদিক সহ বিভিন্ন পর্যায়ের করোনা যোদ্ধাদের জন্য সুরক্ষা সামগ্রী পিপিই, মাকস, গøাভসসহ বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণ করেছেন। করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন হাসপাতালে অক্সিজেন যন্ত্রপাতি এবং প্রয়োজনীয় ঔষধ ও চিকিৎসা সামগ্রী সরবরাহ করেছেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কালুখালী উপজেলা শাখার পক্ষ থেকে জননেতা মো. জিল্লুল হাকিম এবং তরুণ প্রজন্মের নেতা আশিক মাহমুদ মিতুলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।
পরিশেষে, কিছুদিন পূর্বে কালুখালী উপজেলার মাজবাড়ী ইউনিয়নের বেতবাড়ীয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান যুবলীগের সক্রিয় সদস্য রবিউল ইসলামের হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং একই সংগে উক্ত হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত অপরাধীদের দ্রæত বিচারের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা নিশ্চিত করা এবং নিরপরাধ ব্যক্তিদের হয়রানী না করার জন্য প্রশাসনের নিকট আহবান জানাচ্ছি। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।
মানববন্ধনে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগ, আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ ও বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ কালুখালী শাখা, শিল্প ও বণিক সমিতি, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি সংবাদ