সংবাদ প্রকাশের জের।। সৈয়দপুরে এসএসডি গুদামে নিম্নমানের চাল আটকের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন

editor ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

শাহজাহান আলী মনন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ  ১৪ সেপ্টেম্বর-২০২০,সোমবার। 

নীলফামারীর সৈয়দপুর সরকারী খাদ্য গুদামে নিম্নমানের চাল ঢুকানোর সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এসি ল্যান্ড কর্তৃক ট্রাকসহ চাল আটকের ঘটনায় ৩ সদস্যদের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। নীলফামারী জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা ১৪ সেপ্টেম্বর সোমবার সকালে এ কমিটি গঠন করেন। জেলার জলঢাকা উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জগদীশ চন্দ্র দাস কে প্রধান করে গঠিত কমিটির অন্য দুইজন সদস্য হচ্ছেন কিশোরীগন্জ উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মিজানুর রহমান ও নীলফামারী সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুল্লাহ আরেফিন।
নীলফামারী জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা মোঃ নাজমুল হক ভুইয়া গতকাল রোববার রাতে সৈয়দপুর উপজেলা খাদ্য গুদাম পরিদর্শন করেন এবং ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠনের ঘোষণা দেন। এসময় তিনি বলেন,দৈনিক কালের কাগজ সহ কয়েকটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে নিম্নমানের চাল দিতে সংবাদ প্রকাশের প্রেক্ষিতে খাদ্য বিভাগের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তিনি বিষয়টি তদারকি করছেন।
তদন্ত কমিটি গঠন সম্পর্কে তিনি সোমবার দুপুরে এ প্রতিবেদক কে জানান, আগামী ৩ কার্যদিবসের মধ্যে এ কমিটি তদন্ত সম্পন্ন করে প্রতিবেদন দিবেন। তদন্ত কার্যক্রম সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে করা হবে বলে তিনি সাংবাদিকদের আস্বস্ত করেন এবং সহযোগিতার প্রত্যাশা করেন।
উল্লেখ্য, সৈয়দপুর সরকারী গুদামে চলতি মৌসুমে ২ হাজার ৫শ’ মেট্রিক টন চাল ক্রয়ের মাধ্যমে সংগ্রহ পূর্বক সংরক্ষনের কথা। কিন্তু এলএসডি ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফজলুল হক অন্যান্য মিল মালিকদের পাশ কাটিয়ে তার আস্থাভাজন মাত্র একজন মিল মালিকের মাধ্যমে এক তৃতীয়াংশ অর্থাৎ প্রায় ১ হাজার ৯শ’ মেট্রিক টন চালই ক্রয় করেন। মেসার্স আফজাল অটো রাইস মিল মালিকের কাছ থেকে এই ক্রয়কৃত চালের সিংহভাগ ইতোমধ্যে গুদামজাত করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় রোববারও ট্রাক নং-ঢাকা-মেট্রো-ট-১৬৫৪৪০ এর মাধ্যমে ১ হাজার ৩ শ’ টন ২শ’ গ্রাম চাল গুদামজাত করার জন্য এলএসডি তে আনা হয়। ৩০ কেজি ওজনের  প্রায় ৪৪৪ বস্তায় প্রায় ৪ লাখ ৭৫ হাজার ২৮০ টাকা মূল্যমানের চাল সরবরাহ করে আফজাল অটো রাইস মিল কর্তৃপক্ষ। যা অত্যন্ত নিম্ন মানের ছিল। লালচে রংয়ের এই চাল এলএসডি’র ওসি গুদামজাত করতে কোন রকম বাধা না দিয়ে বা যাচাই বাছাই না করেই জোগসাজশের মাধ্যমে তড়িঘড়ি করে ট্রাকটি ভিতরে প্রবেশ করিয়ে খামাল দেয়ার চেষ্টা করে।
গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এ বিষয়ে অবগত হয়ে সৈয়দপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রমিজ আলম তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ট্রাকের চালের বস্তা যাচাই বাছাই করেন। এতে মিল কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ইতোপূর্বে সরবরাহকৃত নমুনার সাথে মিল না পেয়ে এবং চালের রং লালচে হওয়ায় তা ফেরত পাঠিয়ে দেন। এ ঘটনায় ইতোপূর্বে ওই মিল কর্তৃক সরবরাহকৃত ১ হাজার ৯ শ’ মেট্রিক টন চালের ক্ষেত্রেও নিম্নমানের দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সম্প্রতি সংবাদ