ব্রেকিং নিউজ

মানিকগঞ্জের ৭টি উপজেলাতে পোনা মাছ অবাদে বিক্রি হচ্ছে

editor ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

রামপ্রসাদ সরকার দীপু ষ্টাফ রিপোর্টার ঃ ১৬ সেপ্টেম্বর-২০২০,বুধবার।
মানিকগঞ্জের ৭টি উপজেলাতে অবাধে নিষিদ্ধ পোনা মাছ বিক্রি হচ্ছে। পোনা মাছ অবাধে নিধন করার ফলে এক দিকে যেমন মাছ নিনিষ্ট হচ্ছে। অপর দিকে মাছের বংশবৃদ্ধি হ্রাস পাচ্ছে। সরকারি ভাবে এসব পোনা মাছ বিক্রি আইনত নিষিদ্ধ হলেও মানিকগঞ্জ পৌরসভাসহ ঘিওর, দৌলতপুর, শিবালয়, সিংগাইর, সাটুরিয়া ও হরিরামপুর উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজারগুলোতে এমনকি জনবহুল এলাকাগুলোতে রাস্তার পাশে প্রকাশ্যে এই সব মাছ বিক্রি হচ্ছে।
জানা গেছে, মানিকগঞ্জ পৌরসভাসহ উপজেলাগুলোতে প্রতিদিন ভোরে মাছের আরত বসে। এই সব আড়তে প্রতিদিন হাজার হাজার টাকার মাছ বিক্রি হচ্ছে। এর মধ্যে হিংস ভাগই হচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির পোনা মাছ। এদিকে ডাক ঢোল পিটিয়ে উপজেলা মৎস অধিদপ্তগুলো জাতীয় মৎস সপ্তাহ উদযাপন করলেও অবৈধভাবে পোনা মাছের নিধন বন্ধে তাদের কোনো ভুমিকা দেখা যায়না। তবে মৎস্য অধিদপ্তর বলছে পোনা মাছ নিধনের বিরুদ্ধে তাদের অভিযান অব্যাহত আছে। সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, দরিদ্র মৎস্যজীবিদের সরকারি রেশনের আওতায় না আনতে পারলে পোনা মাছ বিক্রি বন্ধ করা যাবেনা। দুই মাসে এই পোনা মাছ নিধন বন্ধ রাখতে পারলে প্রকৃতিভাবে মাছের উৎপাদন কয়েকগুর বেড়ে যাবে। জেলেরাও লাভবান হবে। তবে মৎস্য অফিসের ভুমিকা না থাকায় অবাধে চলছে পোনা মাছ নিধন।
মাছের প্রজনন মৌসুম জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ৯ ইঞ্চির নিচে রুই,কাতল, মৃগেল কালিবাউশ জাতীয় মাছ ধরা সরকাররি ভাবে নিষিদ্ধ হলেও এটি মানছেন না স্থানীয় মৎস্যজীবিরা। একাধিক সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার নদ-নদী, খাল বিলে নিষিদ্ধ কোনাজাল ও কারেন্ট জাল দিয়ে অবাধে বিপুল পরিমান বিভিন্ন জাতের পোনা মাছ নিধন করছেন তারা। এভাবে কোনাজাল ও কারেন্ট জালে অবাধ ব্যবহারের ফলে বর্তমানে মিঠা পানির মাছের আকাল দেখা দিয়েছে। মানিকগঞ্জ পৌর এলাকা বেইথা এলাকায় মাছের আড়ত গিয়ে দেখা যায়, প্রায় সব মাছ ব্যবসায়ীদের ড্রাম ও মাছের পাত্রে বিপুল পরিমান মাছের পোনা বিক্রির জন্য থালাতে নিয়ে বসে আছে মাছ ব্যবসায়ীরা। পোনা মাছ বিক্রেতা রা বলেন, আমরা আমরা পোনা মাছ ধরিনি। জেলেরা নিয়ে আড়তে আসে । তাদের কাছ থেকে আমরা ক্রয় করে বিক্রি করে থাকি। মাছ বিক্রি করতে আসা একজন জেলে জানান, বর্তমানে জালে অন্য মাছ উঠেনা তবে পোনা মাছ বিপুল পরিমানে জালে উঠে । পোনা মাছ বিক্রি করে ছেলে মেয়ে নিয়ে কোন মতে বেঁচে আছি। ঘিওর উপজেলার ধানহাট আড়তে ও ঘিওর বাজারে এবং উপজেলা বাজারে প্রতিদিন অবাদে পোনা মাছ বিক্রি হচ্ছে। ভোর বেলাতে জেলেরা বিভিন্ন জাল দিয়ে নদ নদী থেকে পোনা মাছ বিক্রির জন্য ঘিওর আড়তে নিয়ে আসে।
মানিকগঞ্জ জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান বলেন, আমাদের লোকবলের যথেষ্ট অভাব রয়েছে। তা ছাড়া পোনা মাছ বিক্রির বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যে অভিযান চালিয়ে ব্যাপক মাছ জব্দ করে অবমুক্ত করা হয়েছে। বন্যার পানি করার কারনে পোনা মাছ উম্মুক্ত স্থানে চলে গেছে। হয়তো জেলেরা এগুলো বিক্রি করছে। এলাকার অভিঞ্জ মহল পোনা মাছ বিক্রি বন্ধে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেক কামনা করছেন।

সম্প্রতি সংবাদ