ব্রেকিং নিউজ

গোয়ালন্দ কাতল মারা চকে বিদ্যুৎ পেলো নদী ভাঙনের শিকার ২৮টি পরিবার

editor ৮ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

আবুল হোসেন,রাজবাড়ী প্রতিনিধি:০৪ অক্টোবর-২০২০,রবিবার।

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে নদী ভাঙনের শিকার হয়ে আসা ২৮টি পরিবারকে রবিবার পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ দেয়া হয়েছে। মাত্র ৭ দিনের মধ্যে পরিবারগুলো এ সংযোগ পান। মজিব মত বর্ষ উপলক্ষে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ঘোষনা করেন গ্রাম কে শতভাগ বিদ্যুৎতায়ন করার। তারই অংশ হিসাবে এ উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎতায়ন করা হলো।
জানা যায়, গোয়ালন্দ উপজেলায় নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়ে দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা থেকে ২৮টি পরিবার উজানচর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের কাতল মারার চক এলাকায় ২ বছর ধরে বসবাস করছেন। তাদের বিদ্যুৎসহ বিভিন্ন ধরণের সমস্যা রয়েছে। বিষয়টি অবগত হয়ে ৭দিন আগে আওয়ামীলীগ নেতা মোস্তফা মুন্সি পল্লী বিদু্যূতের স্থানীয় কর্মকর্তাদের সাথে নিয়ে ওই এলাকা পরিদর্শন করেন। এরপর পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগের সার্বিক সহযোগিতা এবং নদী ভাঙনের শিকার পরিবারগুলোর পক্ষে মোস্তফা মুন্সির প্রয়োজনীয় আর্থিক সহযোগিতায় মাত্র ৭দিনের মধ্যে ওই পরিবারগুলোকে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হলো। বিদ্যুৎ সংযোগ শেষে অসহায় পরিবারগুলোর মাঝে মোস্তফা মেটাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিঃ এর পক্ষ থেকে ত্রাণ সামগ্রী দেয়া হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আমিনুল ইসলাম। মোস্তফা মেটাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিঃ এর পরিচালক মো. সেলিম মুন্সির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আমিনুল ইসলাম ,বক্তব্য রাখেন পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি রাজবাড়ীর এজিএম আক্তার জিন নুরাইন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. মোস্তফা মুন্সি, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি গোলজার হোসেন মৃধা, রাজবাড়ী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সভাপতি ডা. কুব্বাত হোসেন প্রমূখ।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, বাতির নীচে অন্ধকারের মতো এ পরিবারগুলো এতোদিন বিদ্যুতবিহীন ছিল। এদেরকে বিদ্যুত সংযোগ পেতে সহযোগিতা করায় আমি পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগসহ সকল কে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।
রাজবাড়ী পল্লী বিদ্যুৎ উন্নয়ন সমিতির সভাপতি ডা.কুব্বাত হোসেন জানান, এই ২৮টি পরিবারকে বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে ১৩টি নতুন পিলার স্থাপনসহ সমিতির প্রায় ১৪ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। নদী ভাঙ্গন কবলিত পরিবার গুলো কে সাত দিনের মধ্যে বিদ্যুৎ দেওয়া বড় একটি চ্যালেঞ্জ ছিলো।

সম্প্রতি সংবাদ