পাংশার সরিষা ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সোবাহানের বিবৃতি

editor ৩রা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

মোক্তার হোসেন, পাংশা (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি :১০ অক্টোবর-২০২০,শনিবার।

রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার সরিষা ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সরিষা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. আব্দুস সোবাহান গত ৪ অক্টোবর-২০২০ প্রকাশিত “এমপি জিল্লুলের রাজবাড়ী শাসন” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের আংশিক বিষয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন। প্রদত্ত বিবৃতিতে তিনি উল্লেখ করেন, “ওই নির্বাচনে সংসদ সদস্য জিল্লুল হাকিমের ঘনিষ্ঠ বিএনপি থেকে আসা সোবাহান বিদ্রোহী প্রার্থী আনারস প্রতীকে নির্বাচন করেন। নির্বাচনের দুই বছর পর সংসদ সদস্যের প্রশ্রয়ে বেপরোয়া হয়ে ওঠে সোবাহানের ছোট ভাই রতন, ফরিদ, ইকবাল, সাইফুলসহ একটি দল। একপর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যান বাহার বিশ্বাসের ছোট ভাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক পিকুল বিশ্বাসকে গুলি করে খুন করে সোবাহানের ক্যাডাররা। বাহার বিশ্বাস কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘যারা আমার ভাইকে হত্যা করেছে, তারা সবাই এমপি জিল্লুল হাকিমের লোক। বিএনপি থেকে দলে আসা ওইসব ক্যাডার বাহিনী আমার ভাইকে খুন করলেও প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ায়।”
এ বিষয়ে আব্দুস সোবাহান তার বিবৃতিতে বলেন, “আমার জীবনে কোনো দিনই বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলাম না। আমার বাবা-দাদার আমল থেকেই আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করে আসছি। আমি ছাত্র জীবন থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতি করতাম। ১৯৮৯ সাল থেকে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত মাদারবকস হল শাখার ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলাম। আমার ছোট ভাই রতন সরিষা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি। আমার বড়ভাই আহম্মদ হোসেন পরপর ৩ মেয়াদ (১৫ বছর) সরিষা ইউপির চেয়ারম্যান ছিলেন, পরবর্তিতে পাংশা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি বর্তমানে রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সদস্য এবং পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। আমার বড়ভাই আহম্মদ হোসেন সরিষা বঙ্গবন্ধু ডিগ্রী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা। বিএনপি আমলে চরম দুঃশাসনের সময় ১৯৯৪ সালে নিজের উদ্যোগে ক্রয়কৃত সম্পত্তিতে বঙ্গবন্ধুকে ভালবেসে বঙ্গবন্ধু কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। যে কলেজ আজ সুনামের সাথে একটি সফল প্রতিষ্ঠানে রূপলাভ করেছে। এছাড়া পিকুল হত্যা নিয়ে যে সংবাদ লেখা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। আমি ও আমার পরিবার কখনও কোনো জঘন্য হত্যা-রাহাজানীর রাজনীতি করিনা, আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করি। সুতরাং “এমপি জিল্লুলের রাজবাড়ী শাসন” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদে আমাকে ও আমার পরিবার নিয়ে যা কিছু লেখা হয়েছে তার সবই মিথ্যা, বানোয়াট, উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও ভিত্তিহীন সংবাদ।”

 

সম্প্রতি সংবাদ