ব্রেকিং নিউজ

সাতক্ষীরায় ৪ হত্যাকাণ্ডে ভাই রায়হানুল গ্রেফতার, ১০ দিনে রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ

editor ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ breaking সারাদেশ

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি :১৬ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার।

সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়নের খলসি গ্রামে স্বামী-স্ত্রী ও তাদের দুই সন্তানকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহত গৃহকর্তা কলারোয়ার হেলাতলা ইউনিয়নের খলসি গ্রামের মৎস্য হ্যাচারি মালিক শাহিনুর রহমানের (৪০) ভাই রায়হানুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

রায়হানুল ইসলামকে বৃহস্পতিবার গ্রেফতার করা হয়েছে। শুক্রবার দুপুর আড়াইটার দিকে তাকে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। রায়হানুল নিহত শাহীনুরের মেজ ভাই।

এর আগে বৃহস্পতিবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রায়হানুলকে পুলিশ কলারোয়া থানায় নিয়ে যায়। পরে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মো. আনিসুর রহমান জানান, রায়হানুলকে জিজ্ঞাসাবাদের পর শুক্রবার আদালতে পাঠানো হয়েছে। আমরা ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেছি। শুনানি শেষে আদালত এ বিষয়ে নির্দেশনা দেবেন।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার ভোর রাতে কলারোয়ার হেলাতলা ইউনিয়নের খলসি গ্রামের মৎস্য হ্যাচারি মালিক শাহিনুর রহমান (৪০), তার স্ত্রী সাবিনা খাতুন (৩০), ছেলে সিয়াম হোসেন মাহি (১০) ও মেয়ে তাসনিমকে (৭) কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করা হয়। তবে ৬ মাসের শিশু কন্যা মারিয়াকে কিছু করেনি হত্যাকারীরা।

হেলাতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, শাহিনুর রহমান মাছের ব্যবসা করতেন। খুব ভালো মানুষ ছিলেন। এলাকার কারো সঙ্গে ঝগড়া বিবাদ করতে শুনিনি। এই হত্যাকাণ্ডে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

তিনি আরও বলেন, বাবা-মাকে জবাই করে হত্যার সময় হত্যাকারীদের চিনতে পারায় দুই শিশুকে হত্যা করা হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে হত্যাকাণ্ড দেখে পেশাদার খুনি বলে মনে হচ্ছে না। শাহিনুর রহমানকে পা বেঁধে আলাদা একটি ঘরে হত্যা করা হয়েছে। দুই বাচ্চা ও মাকে আলাদা আরেকটি ঘরে হত্যা করা হয়েছে।

ময়নাতদন্ত শেষে শাহীনুর, তার স্ত্রী সাবিনা খাতুন, ছেলে সিয়াম হোসেন মাহী ও মেয়ে তাসনিম সুলতানার লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতেই ব্রজবাকসা গ্রামে শাহিনুরের মামা আবদুল কাদেরের পারিবারিক গোরস্থানে তাদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

হেলাতলা ইউনিয়নের ৩নং খলসী ওয়ার্ড সদস্য সোহরাব হোসেন বলেন, হত্যাকারীরা তালা ভেঙে সিঁড়ি দিয়ে প্রবেশ করলেও হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে বের হয়ে গেলে কিছু নমুনা থাকে সেই রকম কিছুও পাওয়া যায়নি। এ রকম ঘটনা ঘটাতে হলে দুই-পাঁচ জন মানুষ লাগে, সে রকম কোনও আলামত এখানে দেখা যায়নি।

তিনি জানান, তাদের সঙ্গে জমি নিয়ে কিছু লোকের বিরোধ ছিল। তারা ঘটিয়েছে কিনা বোঝা যাচ্ছে না। যে ঘরে এই মর্মান্তিক এবং ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে তার ৩০ হাত দূরে নিহত শাহিনুর রহমানের ছোট ভাই রায়হানুল ইসলামের ঘর।

তিনি আরও বলেন, নিহত শাহীনুরের মা শাহিদা খাতুন (৬০) আত্মীয়ের বাড়িতে ছিলেন। শাহীনুরের তিন ভাইয়ের মেজভাই আশরাফুল মালয়েশিয়া থাকেন। অপরজন রায়হানুল ইসলাম একজন ব্যবসায়ী। বর্তমানে দাদি ছাড়া শিশু মারিয়াকে দেখার মতো কেউ নেই।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। লোমহর্ষক এ ঘটনায় কলারোয়া থানায় মামলাটি দায়ের করেছেন নিহত শাহিনুরের শাশুড়ি কলারোয়ার ওফাপুর গ্রামের রাশেদ গাজির স্ত্রী ময়না বেগম।

কলারোয়া থানার ওসি (চলতি দায়িত্বে) হারান চন্দ্র পাল জানান, নিহত শাহিনুরের শাশুড়ির লিখিত এজাহারটি মামলা হিসেবে রুজু করা হয়েছে। মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব সিআইডির ওপর দেয়া হয়েছে।

মামলা তদন্তের দায়িত্বে থাকা সিআইডির পরিদর্শক আকতার হোসেন জানান, নিহত শাহিনুরের ভাই রায়হানুলকে হত্যা মামলায় গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। তার কাছে হত্যার বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে মামলার তদন্তের স্বার্থে সব বিষয় এই মুহূর্তে উপস্থাপন করা সম্ভব না।

সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মির্জা সালাউদ্দিন বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি একাধিক কারণে হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে। ইতোমধ্যে বেশ কিছু বিষয় আলোচনায় এসেছে। নিহতের ভাই রায়হানুল ইসলামকে হত্যা মামলায় আটক করেছে সিআইডি। এর মধ্যে জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধ, পারিবারিক দ্বন্দ্ব, ব্যবসা সংক্রান্ত বিরোধ থাকতে পারে। নিহতের বিরুদ্ধে মাদকের মামলা ছিল। আমরা সব কয়টি বিষয় যাচাই-বাছাই করছি। পূর্ব পরিকল্পিতভাবে কেউ ঘটিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সম্প্রতি সংবাদ