ব্রেকিং নিউজ

ফের প্লাষ্টিকের ব্যাগে ২০ হাজার ইয়াবা ……টেকনাফে মালিক বিহীন ইয়াবা উদ্ধার ফিরিস্থি দীর্ঘ হচ্ছে !

editor ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

মুহাম্মদ জুবাইর, টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি:১৯ অক্টোবর-২০২০
টেকনাফে কোন মতেই থামছে না মাদক কারবার। প্রতিদিন ছোট বড় মাদকের চালান উদ্ধার ও জব্দ হচ্ছে আইনশৃংখলা বাহিনীর হাতে। মাদকের বদনাম ঘুছানোর নামে ইতি মধ্যে আইন শৃংখলা বাহিনীর সাথে কথিত বন্দুক যুদ্ধে দু’শতাধিক মানুষের প্রাণ হানি ও দু’দফা মাদক কারবারে জড়িতদের স্বেচ্ছায় আত্বসমর্পনের পরও থামেনি মাদক কারবার। প্রাণ হানি ও আটকের ভয়ে কিছুদিন মাদক কারবার শিথিল থাকলেও সম্প্রতি হঠাৎ করেই বেড়েছে মাদক পাচার। বেড়েছে মাদকে জড়িতদের অস্ত্রের ঝনঝনানি ও দীর্ঘদিন অকেজো করে রাখা মোটর বাইক গুলোর ছোঁছা শব্দ। মোটর বাইকের ছোঁছা শাব্দের সাইরেন এ অতিষ্ট সাধারনরা। এক সময় মাদকে জড়িতদের বিরুদ্ধে মুখ খোললেও এখন সহজেই মুখ খোলে না কেউ। নেপথ্যে প্রানে মেরে ফেলার হুমকি ও গোপনে ইয়াবা পুঁতে রেখে ফাঁসানোর আশংকা। গেল ৩১ জুলাই পুলিশের গুলিতে সেনাবাহিনীর (অবঃ) মেজর সিন্হা মোহাম্মদ রাশেদ খাঁন নিহতের পর পুলিশের অভিযান ও অন্যান্য আইনশৃংখলা বাহিনীর মাদকসহ অপরাধ দমন মূলক অভিযান শিথিলতার সুযোগে দেশ বিদেশে পালিয়ে থাকা ইয়াবা কারবারীরা স্বরুপে এলাকায় ফিরে এসে বীর দর্পে মাদক কারবার চালিয়ে যাচ্ছে। পাড়া মহল্লায় বসেছে ইয়াবার শালিস ও হাঁট। এসব কারবারীদের ওপেন চ্যালেঞ্জ যারা মাদকের বিরুদ্ধে কথা বলবে তাকে প্রানে হত্যা করে লাশ গুম করবে বা ইয়াবায় ফাঁসাবে। যার ফলে গ্রামে গঞ্জে এক সময়ের মাদকের বিরুদ্ধে থাকারাও এখন নিরব ভুমিকা পালন করছে। চলতি মাসে বিজিবি ও র‌্যাব এর অভিযানে মোটা অংকের ইয়াবা উদ্ধার হয়েছে। ইয়াবা উদ্ধার সংখ্যা বাড়লেও আটকের সংখ্যা খুবই নগন্য। চলতি অক্টোবর মাসের বিজিবির দেওয়া তথ্য মতে ৩ লাখ ১৭ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। তার মধ্যে ২লাখ ৭৬ হাজার ইয়াবার কোন মালিক নেই। প্রায় সময় বে-ওয়ারিশ বা মালিকবিহীন ইয়াবা উদ্ধার নিয়ে সচেতন মহলের মাঝে বিভিন্ন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। ফের ১৯ অক্টোবর (সোমবার) ভোররাতে হ্নীলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন রাস্তার পাশ হতে ২০ (বিশ) হাজার মালিক বিহীন ইয়াবা উদ্ধার করেছে বিজিবি। সুত্রে জানা যায়, হ্নীলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন পাশে ইয়াবা ট্যাবলেট ক্রয় বিক্রয়ের গোপন সংবাদে হ্নীলা বিওপির বিশেষ টহল দল ওই স্থানে পৌঁেছ সতর্ক অবস্থানে থাকে। এসময় ওয়াব্রাং এলাকা হতে দু’জন ব্যক্তি প্লাষ্টিকের ব্যাগ হাতে নিয়ে আসতে দেখে বিজিবি’র সন্দেহ হওয়ায় তাদের চ্যালেঞ্জ করে ধাওয়া করে। বিজিবির ধাওয়ায় পালিয়ে যাবার সময় হাতে থাকা প্লাষ্টিকের ব্যাগটি রাস্তায় ফেলে যায়। ব্যাগটি উদ্ধার করে খোলা হলে সেখানে ২০(বিশ) হাজার ইয়াবা পাওয়া যায়।
টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২বিজিবি) মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খাঁন (পিএসসি), ইয়াবা উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পালিয়ে যাওয়া ইয়াবা কাবারীদের সনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। উদ্ধারকৃত ইয়াবা গুলো ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। পরবর্তীতে উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে।