ব্রেকিং নিউজ

নাগরপুরে গণহত্যা দিবস পলিত

editor ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

নাগরপুর (টাঙ্গাইল)প্রতিনিধিঃ-২৫ অক্টোবর-২০২০
টাঙ্গাইলের নাগরপুরে গণহত্যা দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে রবিবার (২৫ অক্টোবর) সকালে উপজেলার বনগ্রাম গণকবরে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে শহীদ স্মৃতি স্তম্ভে পুস্পস্তবক অর্পণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
বনগ্রাম গণকবরে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভুমি) তারিন মসরুর, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন তালুকদার, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন কবীর, মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার মো.সুজায়েত হোসেনসহ বিভিন্ন এলাকার মুক্তিযোদ্বা ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
উপজেলা সদর থেকে ৮ কিলোমিটার পশ্চিমে গয়হাটা ইউনিয়নে যমুনা নদীর শাখা নদী ধলেশ্বরীর পাড়ে গ্রামটির অবস্থান। ১৯৭১ সালের এই দিনে টাঙ্গাইলের নাগরপুরের এই গ্রামটিতে ব্যাপক ধ্বংস যজ্ঞ ও গণহত্যা চালায় পাকিস্থানী বাহিনী। জানা যায়, ১৯৭১ সালের ২১ অক্টোবর বনগ্রাম প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মুক্তিযোদ্ধারা অবস্থান নিয়েছেন এমন সংবাদ পেয়ে সিরাজগঞ্জ থেকে গানবোট নিয়ে এসে পাক হানাদার বাহিনী বনগ্রাম আক্রমন করে। সে সময় তুমুল যুদ্ধ হয়। যুদ্ধে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর একজন মেজরসহ ৩ জন নিহত হয়। আর মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে শহীদ হন জেলার কালিহাতী উপজেলার নজরুল ইসলাম নজু, মুন্সিগঞ্জ জেলার গজারিয়া উপজেলার জাহাঙ্গীর আলম, আকতারুজ্জামান ও ওহাব আলীসহ ৭ জন। অবস্থা বেগতিক দেখে মুক্তিযোদ্ধারা পিছু হটে ও পাকিস্তান হানাদার বাহিনী স্ব স্ব ক্যাম্পে ফিরে যায়। পরবর্তীতে পাক হানাদার বাহিনী ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে ২৫ অক্টোবর বনগ্রাম আক্রমন করে অগ্নিসংযোগ ও ব্যাপক গণহত্যা চালায়। আবাল, বৃদ্ধ, শিশু ও মহিলা কেউ রেহাই পায়নি হায়েনাদের হাত থেকে, হত্যা করে ৫৭ জনকে এবং ১২৯টি বাড়িতে অগ্নি সংযোগ করে। পরে তাদেরকে একত্রে মাটি চাপা দেয়া হয়। স্বাধীনতার পরে ঐ স্থানটিকে বনগ্রাম গণকবর হিসেবে নামকরণ করা হয়।