ঘিওরে মানবেতর জীবন যাপন করছে শাররীক প্রতিবন্ধী কুদ্দুস

editor ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

রামপ্রসাদ সরকার দীপু প্রতিনিধি, মানিকগঞ্জ ঃ৩০ অক্টোবর-২০২০,শুক্রবার।
দুঃখ দারিদ্যের কষাঘাতে বিপযস্ত হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার বড়টিয়া ইউনিয়নের শ্রীবাড়ি গ্রামের শাররীক প্রতিবন্ধী মোঃ আব্দুল কুদ্দুস ।
সরেজমিন পরিদর্শন করে জানা গেছে, দীর্ঘদিন আগে একটি সড়ক দুঃর্ঘটনায় তার জীবনের সকল প্রকার সুখ শান্তি নষ্ট হয়ে গেছে। ৯০ দশকের দিকে ঢাকা- আরিচা মহাসড়কহ বিভিন্ন রোডে বিআরটিসিসহ নানা ধরনের যানবাহন চালিয়ে জীবন যাপন করতেন । বর্তমানে পঙ্গুত্ব বরন করে বহু কষ্টে জীবনযাপন করতে হচ্ছে তাকে । নিজস্ব জমিজমা বলতে তার মা মৃত মোসাঃ নছিরন নেছার রেখে যাওয়া শ্রীবাড়ি মৌজাতে খতিয়ান নং ৪৬১/৯দাগ নং ১৩০০/২১১৪ নাল ৪৯ ডিং লিজকৃত জমিটি তার একমাত্র ভরসা। তার মা মৃত নছিরন নেছার নামীয় ভিপি কেস নং ২০৪/ঘি/৭৪ নামে অন্তভ’ক্ত ছিল। কুদ্দুসের মা মারা যাবার পরে ওয়ারিশ সুত্রে ভিপি কেসটি পরিবর্তনের জন্য আবেদন করলেও তা দীর্ঘদিনেও পরিবর্তন হয়নি। বর্তমানে ছোট একটি ছাপরা ঘরে পরিবারের সবাইকে নিয়ে দুঃখ কষ্ট করে এখানেই বসবাস করতে হচ্ছে তাকে। কখনও খেয়ে কখনও না খেয়ে তার প্রতিটি দিন কাটে। আগের মত শরীরে শক্তি নেই। তার পরেও জীবনে বেঁচে থাকার তাগিদে তাকে কাজ করতে হচ্ছে।
সব চেয়ে আশ্চয্য বিষয়, ছাপরা ঘরের পাশে ছোট একটু জায়গাতে বিভিন্ন ধরনের সবজী আবাদ করে তার দৈনন্দিন খরচ জোগাতে হয়। তবে বৃষ্টির সময় ছাপড়া ঘড়টি দিয়ে পানি পরে। স্ত্রী মরকুন বেগম তার সকল প্রকার কাজে সাহায্য সহযোগিতা করে।
কুদ্দুসের বাড়িতে যাতায়াতের রাস্তা নেই বললেই চলে। বন্যার সময় এ অঞ্চলের লোকজনের নৌকা একমাত্র ভরসা। এদিকে স্থানীয় একটি মহল প্রতিবন্ধী আব্দুল কুদ্দুসের জমি থেকে উচ্ছেদ করতে নানা ধরনের হুমকি দিচ্ছে। ফলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে তিনি আতংকের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। তার মা মারা যাবার পরে ওয়ারিশসূত্রে জমির মালিক দাবি করে তিনি নাম পরিবর্তনের জন্য দীর্ঘদিন আগে জেলা প্রশাসকের নিকট আবেদন করেছেন। বড়টিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ফরিদুল ইসলাম বাবর জানান, প্রতিবন্ধী মোঃ আব্দুল কুদ্দুস এলাকার একজন নিরিহ মানুষ। আমি তাকে একটি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড করে দিয়েছে। পর্যায়ক্রমে তাকে অন্যান্য সুযোগ সুবিধা দেওয়া হবে।

 

সম্প্রতি সংবাদ