ব্রেকিং নিউজ

ডব্লিউএইচওর নির্বাহী পরিচালক পদে বাংলাদেশকে ভারতের সমর্থন

editor ১২ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ breaking slider-top প্রধান খবর

কালের কাগজ ডেস্ক: : ১০ ডিসেম্বর ২০২০,

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের নির্বাহী পরিচালক পদে বাংলাদেশের প্রার্থিতার প্রতি সমর্থন জানিয়েছে ভারত।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে ভারতের নতুন হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী এই সমর্থনের কথা জানান।

পরে প্রধানমন্ত্রীর উপ প্রেসসচিব হাসান জাহিদ তুষার গণমাধ্যমে বিষয়টি অবগত করেন।

উপ প্রেসসচিব হাসান জানান, বাংলাদেশকে সমর্থন দেয়ার পাশাপাশি ভারতের হাইকমিশনার ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশকে কোভিড-১৯ টিকার ৩ কোটি ডোজ দেওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করেন।

সাক্ষাতে মহামারির কারণে ভারতের ভিসা প্রাপ্তিতে বাংলাদেশিরা যে সমস্যার সম্মুখীন সে ব্যাপারে হাই কমিশনার বলেন, এখন বিভিন্ন ক্ষেত্রে ৯০ শতাংশ ভারতীয় ভিসা দেওয়া শুরু হয়েছে। আর বাকিগুলো পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে দেওয়া হবে।

তিনি পারস্পরিক স্বার্থে দুই দেশের মধ্যে ব্যবসায়িক পর্যায়ে আন্তঃসংযোগ বাড়ানোর উপর গুরুত্বারোপ করেন।

কৃষি পণ্যের মূল্য সংযোজনে বাংলাদেশের খাদ্য ও কৃষি খাতে বিনিয়োগে ভারতের আগ্রহের কথাও জানান তিনি।

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী পুনরায় আঞ্চলিক উন্নয়ন এবং সহযোগিতার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দেন।

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সরকার প্রণীত পররাষ্ট্র নীতি ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়’ এর কথা উল্লেখ করেন।

শেখ হাসিনা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও এবং যুদ্ধ পরবর্তী দেশ পুনর্গঠনে ভারতের অবদানের কথা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন।

ভারতের পার্লামেন্টে বাংলাদেশের সঙ্গে সীমান্ত চুক্তির বিষয়টি (এলবিএ) সর্বসম্মতভাবে পাস হওয়ার বিষয়টি তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের বেলায় সব ভারতীয়ই এককণ্ঠে ঐক্যবদ্ধ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বাংলাদেশের জনগণের প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর শুভেচ্ছা পৌঁছে দেন ভারতের হাইকমিশনার। শেখ হাসিনাও ভারতের প্রধানমন্ত্রীকেও শুভেচ্ছা জানান।

দোরাইস্বামী ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপনের পাশাপাশি বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে গৃহীত ভারতের কর্মসূচি প্রধানমন্ত্রীকে জানান। প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে সব রকমের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

ভারতের হাইকমিশনার বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে সহযোগিতার ধারাবাহিকতায়ই চিলাহাটি-হলদিবাড়ী রেলপথ চালু হচ্ছে।

১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধের পর বন্ধ হয়ে যাওয়া চিলাহাটি-হলদিবাড়ী রেল সংযোগ আগামী ১৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী উদ্বোধন করবেন। সেদিন ভার্চুয়াল সম্মেলনে আরও কিছু প্রকল্পের সঙ্গে উদ্বোধন করা হবে।

গণভবনে এই সাক্ষাৎ অনুষ্ঠানে মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি সংবাদ