টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে অপহরণের পর দুই শিশু হত্যায়, তিনজনের মৃত্যুদন্ড

editor ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ breaking সারাদেশ

মুক্তার হাসান,টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ঃ১৪ ডিসেম্বর-২০২০,সোমবার।

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে দুই শিশুকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় ৯ আসামির মধ্যে তিনজনকে মৃতুদন্ড, তিনজনকে আমৃত্যু কারাদন্ড আর বাকিদের যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। এছাড়াও প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) দুপুরে টাঙ্গাইলে এ রায় ঘোষণা করেন অতিরিক্ত জেলা ২য় আদালতের বিচারক সাউদ হাসান।

মৃত্যুদন্ড প্রাপ্তরা হলেন- ধামরাই উপজেলার চর চৌহাট গ্রামের তারা মিয়ার ছেলে মিল্টন, একই গ্রামের শামছুল হকের ছেলে বাহাদুর মিয়া ও মির্জাপুর উপজেলার সুজানিলজা গ্রামের বাছেদ মিয়ার ছেলে রনি মিয়া।

আমৃত্যু কারাদন্ডপ্রাপ্তরা হলেন-ধামরাই উপজেলার চৌহাট গ্রামের আফসার উদ্দিনের ছেলে শাহিনুর এলাইজ শাহা, শশ্বধরপট্টি গ্রামের মমরেজের ছেলে জহিরুল ইসলাম ও মির্জাপুর উপজেলার আমরাইল তেলীপাড়া গ্রামের শাহাদত হোসেনের ছেলে আব্দুল মালেক।

এছাড়া বাকি তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে। তারা হলেন- ধামরাই উপজেলার চর চৌহাট গ্রামের তাজেল মিয়ার ছেলে আরিফ, মির্জাপুর উপজেলার আমরাইল তেলীপাড়ার জব্বার মল্লিকের ছেলে জাকির হোসেন ও ধামরাই উপজেলার চর চৌহাট গ্রামের আফসার উদ্দিনের ছেলে শামীম মিয়া। তাদের মধ্যে আরিফ পলাতক রয়েছে।

অতিরিক্ত সরকারী কৌঁসলি (এপিপি) খোরশেদ আলম জানান, ২০১৬ সালের ২৭ জানুয়ারি বিকেলে ঢাকার ধামরাই উপজেলার চর চৌহাট এলাকার প্রবাসী দেলোয়ার হোসেনের ছেলে ও ধামরাইয়ের বালিয়া ব্রাক স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী শাকিল (১১) ও একই গ্রামের প্রবাসী আবু বক্করের ছেলে ইমরান (১১) বাড়ি থেকে পার্শ্ববর্তী টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর উপজেলার হারিয়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা দেখতে গিয়ে নিখোঁজ হয়।

পরদিন ২৮ জানুয়ারি মোবাইল ফোনে দুজনের জন্য দুই পরিবারের কাছে এক লাখ করে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারীরা। পরে ২৯ জানুয়ারি রাতে মির্জাপুর উপজেলার হাড়িয়া গ্রামের একটি লেবু বাগান থেকে নিখোঁজ ওই দুই শিশুর গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ৩০ জানুয়ারি নিহত শাকিলের মা জোসনা বেগম বাদি হয়ে মির্জাপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ ১১ জনের নাম উল্লেখ করে ৮ জুন আদালতে চার্জশিট জমা দেয়। এতে দুই জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এরপর পুলিশ ৮ আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠায়। বাকি এক আসামি এখনও পলাতক।

এ হত্যা মামলায় অব্যাহতিপ্রাপ্তরা হলেন- ধামরাই উপজেলার চর চৌহাট গ্রামের রমজান আলীর ছেলে মো. শহিদুল ইসলাম (৩০) ও মির্জাপুর উপজেলার হাড়িয়া দক্ষিণপাড়া গ্রামের ময়নাল হকের স্ত্রী মনোয়ার (৩৮)। যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আরিফ পলাতক রয়েছেন।

নিহত শাকিলের মা জোসনা বেগম বলেন, আসামিদের যে রায় দেওয়া হয়েছে তাতে সন্তুষ্টি প্রকাশ করছি। এবং দ্রæত রায় কার্যকর করার জন্য আহŸান জানান তিনি।

সম্প্রতি সংবাদ