র‌্যাব ১৩’র হাতে নিখোঁজ সিফাতের লাশউদ্ধার, মূল আসামী গ্রেফতার

editor ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

শাহজাহান আলী মনন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ০৯ জানুয়ারী-২০২১,শনিবার।
  র‌্যাব ১৩ সিপিসি-২ নীলফামারী ক্যাম্পের একটি চৌকস দল পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী থানাধীন ছোটধাপ গ্রামের  চাঞ্চল্যকর নিখোঁজ যুবক মোহাম্মদ ফাহিদ হাসান সিফাত এর মৃতদেহ উদ্ধারসহ হত্যার মূল আসামীকে গ্রেফতার ও আলামত উদ্ধার করেছে। ৮ জানুয়ারী শুক্রবার রাত সাড়ে ১০ টায় এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। ৯ জানুুয়ারী প্রেসব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানায় র‌্যাব।
র‌্যাব ১৩ সূত্রে জানা যায়, গত ৪ জানুয়ারী পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী থানাধীন ছোটধাপ গ্রামের মোঃ শফিকুল ইসলাম মোহাম্মদ ফাহিদ হাসান সিফাত (১৮) নিখোঁজ হয়। ৫ জানুয়ারী সিফাতের বাবা আটোয়ারী থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করে। যার নাম্বার ১৮৮/২১।
এর পাশাপাশি তিনি নিখোঁজ ছেলেকে উদ্ধারের জন্য র‍্যাব-১৩, সিপিসি-২ (নীলফামারী) এর সাথে যোগাযোগ করলে কোম্পানি কমান্ডার সিনিয়র এএসপি মুন্না বিশ্বাস এর নেতৃত্বে একটি চৌকস আভিযানিক দল নিবিড় তদন্ত শুরু করে।
তদন্তের এক পর্যায়ে র‍্যাব-১৩ জানতে পারে যে, পারিবারিক শত্রুতার জের ধরে ফাহিদ হাসান সিফাতকে, গত ৪ জানুয়ারী আনুমানিক রাত সাড়ে ৮ টার সময় তার প্রতিবেশি মোঃ মোখলেছুর রহমানের ছেলে হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী এবং হোতা মতিউর রহমান (মতি) সিফাতকে বাড়ির পিছনে উত্তর পাশে জনৈক সাদিকুলের ফলদ বাগানে কৌশলে ডেকে এনে বুকের উপর চেপে বসে গলাটিপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী হত্যাকারী, সাদেকুলের ফলদ বাগানের পশ্চিম পাশে জনৈক দুলালের আবাদি জমিতে পূর্ব হতে করে রাখা গর্তে সিফাতের মরদেহ মাটি চাপা দেয়।
বর্ণিত ঘটনায় জড়িত থাকা সন্দেহে মতিউর রহমান (মতি) কে গত ইং ৮ জানুয়ারী রাতে আরো ৩ জন সন্দেহভাজনস আটক করা হয়। মতিউর রহমান (মতি) কে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সে ঘটনার কথা স্বীকার করে। তার স্বীকারোক্তি ও দেখানো মতে সিফাতের মৃতদেহ উদ্ধারসহ হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত কোদাল, মোবাইল সিম এবং আনুষঙ্গিক আলামত র‍্যাব-১৩ উদ্ধার করতে সক্ষম হয়।
এ সক্রান্তে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আটককৃত মূল অভিযুক্ত মতিউর রহমান মতি ও অপর ৩ জন সন্দেহভাজন আসামিসহ যাবতীয় আলামত অফিসার ইনচার্জ, আটোয়ারী থানাকে হস্তান্তর প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
র‌্যাব ১৩ এর সিনিয়র এএসপি ও সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) সিদ্দিক আহমদ ৯ জানুয়ারী শনিবার সাংবাদিকদের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান, র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সবসময় বিভিন্ন ধরণের অপরাধীদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে অত্যন্ত অগ্রণী ভুমিকা পালন করে আসছে।
তিনি বলেন, র‌্যাবের সৃষ্টিকাল থেকে মাদকদ্রব্য, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, খুনী, অবৈধ অস্ত্র গোলাবারুদ উদ্ধার, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী ও প্রতারক গ্রেফতার এবং প্রত্মসম্পদ উদ্ধারসহ সাধারণ জনগণের মনে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।
এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে সংগঠিত চাঞ্চল্যকর অপরাধে জড়িত অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে র‌্যাব জনগনের সুনাম অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।
এরই অংশ হিসেবে র‌্যাব-১৩ কর্তৃক নিখোঁজ সংবাদ প্রাপ্তির মাত্র ১৮ ঘন্টার মধ্যে চৌকস আভিযানিক দলটি ঘটনার রহস্য উন্মোচনসহ, মূল আসামী গ্রেফতার, মৃতদেহ এবং অন্যান্য আলামত উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে

সম্প্রতি সংবাদ