ব্রেকিং নিউজ

দৌলতপুরে ৫০ শয্যার হাসপাতাল ৪ জন ডাক্তার দিয়ে চলছে স্বাস্থ্য সেবা । রোগিরা স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত

editor ১১ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ breaking সারাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ১২ জানুয়ারি-২০২১,মঙ্গলবার।

হায়রে স্বাস্থ্য, হারে সেবা, যেখানে ডাক্তার নেই, সেখানে সেবার দিবে কি করে, এই অবস্থা চলছে অনেক দিন ধরে মানিকগঞ্জের দৌলতপুর ৫০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রটিতে ।
এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রটিতে সকল ধরনের অবকাঠামোগত,অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতির রয়েছে। বর্তমানে স্বাস্থ্য সেবার মান কিছুটা উন্নতি হলেও ডাক্তার ও জনবল সংকট পিছু ছাড়চ্ছে না।
দীর্ঘ ২ বছর যাবৎ কর্মরত ৪ জন ডাক্তার ৫০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রটিতে স্বাস্থ্য সেবা দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে ।
কাগজে-কলমে ১২ জন ডাক্তার ৫০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রটিতে কর্মরত থাকলেও ৪ জন ডাক্তার দিয়ে চলছে স্বাস্থ্য সেবা। প্রতিদিন চরাঞ্চলের হতদরিদ্র অর্থনৈতিক ভাবে অসচ্ছল রোগি ঢাকা- মানিকগঞ্জ যেতে না পেরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রে স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসে । কিন্তু ডাক্তার সংকটের ফলে প্রতিদিন শতশত নারী-পুরুষ,শিশু রোগি স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

হাসপাতাল সুত্রে জানা গেছে, ১ বছর যাবৎ এই হাসপাতালে পোস্টিংকৃত ডাক্তার মানিকগঞ্জ কর্নেল মালেক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২ জন,মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে ২ জন,পুলিশ লাইনে ১ জন,ঢাকা মেডিকেলে ২,সাভারে ১ জন ডাক্তার প্রেষনে (ডিপেটেশনে) রয়েছে । রোগিরা সেবা থেকে বঞ্চিত হলেও ৮ জন ডাক্তার নিয়োমিত বেতন ভাতা সহ অন্যান্য সুবিধাদি দৌলতপুর থেকে উত্তোলন করছে।

এদিকে মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য এ.এম নাঈমুর রহমান দূর্জয় জানান,বছর খানিক পূর্বে ডিও লেটারের মাধ্যমে ৮ জন ডাক্তারের প্রেষন (ডিপেটেশন) বাতির করে নিয়োমিত পোস্টিং দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্য বিভাগকে বলা হয় । তখন ডাক্তারদের প্রেষন(ডিপেটেশন) বাতিল করে দৌলতপুর হাসপাতালের যোগদানের নির্দেশ প্রদান করে।

কিন্তু পরে ডাক্তার গণ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অসাধু কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করে এক সপ্তাহ পরে সেই আদেশ বাতিল করে। ডাক্তার সংকটের ফলে আমার নির্বাচনী এলাকার জনসাধারন স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে । অভিলম্বে ডাক্তার পোস্টিংয়ের জন্য স্বাস্থ্য বিভাগে আবারো ডিও লেটার দেওয়া হয়েছে।

এবিষয়ে দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ ও প:প: কর্মকর্তা ডা: বাহা উদ্দিন জানান, দীর্ঘ দিন যাবৎ ৪ জন ডাক্তার দিয়ে ৫০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রটিতে স্বাস্থ্য সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে । স্বাস্থ্য কমপ্লেক্র অবকাঠামোগত,অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতির থাকা সত্তেও জনবল সংকট থাকায় ১০০% সেবা দিতে পারছিনা। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে আমি যোগদান করে চেস্টা করছি স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়নের এবংপ্রেষনে ( ডিপেটেশন) থাকা ৮ জন ডাক্তারকে আমার হাসপাতালে দেওয়ার জন্য সিভিল সার্জন মহোদয়কে লিখিত ভাবে জানানো হয়েছে ।এছাড়া টেকনিশিয়ানের অভাবে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।####

সম্প্রতি সংবাদ