ব্রেকিং নিউজ

মানিকগঞ্জ পৌর সভার বিগত ৫ বছরের উন্নয়ন নিয়ে মিটদ্যা প্রেস

editor ২৭শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক::০৩ ফেরুয়ারী-২০২১,বুধবার।

বিগত ৫ বছর মানিকগঞ্জ পৌরসভার বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড তুলে ধরে মিটদ্যা প্রেস অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার দুপুরে পৌরসভার মিলনায়তনে পৌর মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম সাংবাদিকদের কাছে মেয়র হিসেবে বিগত ৫ বছর দায়িত্ব পালন কালে যে সব উন্নয়ন করেছেন তার চিত্র তুলে ধরেন।
এসময় বিগত পরিষদের কাউন্সিলর সুভাষ চন্দ্র সরকার, রতন মজুমদার, সাবিয়া হাবিব, পুনরায় নির্বাচিত কাউন্সিলর আব্দুর রাজ্জাক রাজা, জিয়াসমিন আক্তার, নাজমা আক্তার উপস্থিত ছিলেন।
পৌর মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম বলেন, দায়িত্বভার গ্রহনের পর জয়রা, নারাঙ্গাই, ঝুকুরিয়া, নয়কান্দি, জয়নগর, পৌলি এলাকায় গভীর নলকুপের মাধ্যমে পানি সরবরাহ করা হয়েছে। সেওতা মুন্সীখালি এলাকায় ১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে সারফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপনের কাজ চলেছে। নতুন একটি ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টের অনুমোদন পাওয়া গেছে।
যেসব এলাকায় সড়ক বাতি ছিলো না ওই সব এলাকায় সড়ক বাতির আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। বাসস্ট্যান্ড থেকে খালপাড় মোড় পর্যন্ত সৌন্দর্য্য বর্ধক সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়েছে।
বিএমডিএফ ও জলবায়ু ট্রাষ্ট ফান্ড থেকে ৩০টি রাস্তার উন্নয়ন ও ড্রেন নির্মান করা হয়েছে। আরো ১০ টি রাস্তার উন্নয়ন কাজের টেন্ডার হয়েছে।
২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে শহরের খালকে দৃষ্টিনন্দন ও একটি ব্রীজ নির্মানের অনুমোদন হয়েছে। দ্রæত টেন্ডারের মাধ্যমে তা বাস্তবায়িত হবে।
মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড থেকে খালপাড় পর্যন্ত চার লেন রাস্তা উন্নয়ন কাজ শেষে হয়েছে ও খালপাড় থেকে বেউথা পর্যন্ত চার লেন রাস্তার কাজ প্রায় শেষে পথে।
শহরের কাঁচা বাজার, মাছ বাজার, দুধবাজার নতুন করে শেড নির্মান করা হয়েছে। এছাড়া বাসস্ট্যান্ড কড়ইতলা এলাকায় নতুন করে মার্কেট নির্মান করা হয়েছে। পুরাতন পৌরসভার জায়গায় একটি ৭ তলা আধুনিক মার্কেট নির্মানের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে অনুমোদন পাওয়া গেছে।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী বিভাগের মাধ্যমে মানিকগঞ্জ পৌর এলাকায় ৪৯ কোটি টাকার অবকাঠামো উন্নয়নের কাজ ও কুয়েত ফান্ডের ৪৫ কোটি টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে।
বেউথা ব্রীজের উভয় পাড়ে শেখ রাসেল ফোয়ার নির্মান করা হয়েছে। কোর্ট ব্রীজের পাশে শহীদ রফিক চত্তর মুক্তমঞ্চ নির্মান করা হয়েছে। ব্যবহহার উপযোগি করা হয়েছে মুক্তিযোদ্ধা শিশু পার্ক।
শহর বৃদ্ধি করার জন্য পিপিপি এর মাধ্যমে সরকারি দেবেন্দ্র কলেজের পিছনের চক উন্নয়ন করার জন্য অনুমোদি দেয়া আছে। আগামীতে এই প্রকল্পের কাজ শুরু করা হবে।
পৌর এলাকায় সকল মমসজিদ, মন্দির, কবরস্থান , শ্মাশান ও প্রেসক্লাবের পানির বিল এবং পৌর কর মওকুফ করা হয়েছে।
মৃতদেহ পরিবহনের জন্য লাশবাহী গাড়ীর ব্যবস্থা করা হয়েছে। পয়ঃ বর্জ্য ব্যবস্থার জন্য বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
হালনাগাদ বিদ্যুৎ বিল ও তেলের বিল পরিশোধ করা আছে। সর্বপরি বিগত পরিষদ পৌরবাসীকে পৌরসভায় উপস্থিত থেকে নাগারিক সুবিধা নিশ্চিত করেছেন।
আগামী ৭ ফেব্রæয়ারী আনুষ্ঠানিক ভাবে নবনির্বাচিত পৌর মেয়র রমজান আলীকে দায়িত্বভার বুঝিয়ে দিবেন বলে জানান।

সম্প্রতি সংবাদ