ব্রেকিং নিউজ

মণিরামপুরে শহিদমিনারে জুতা পায়ে এক ঝাঁক অতিথি!

editor ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

জি এম ফিরোজ উদ্দীন ,মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি :০৮ ফেরুয়ারী-২০২১,সোমবার।

মণিরামপুরে সদ্য প্রয়াত এক আওয়ামী লীগ নেতার মৃত্যুতে শোকসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠান উপলক্ষে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শহিদমিনারকে মঞ্চ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। যেখানে জুতা পায়ে উঠে আসন দখল করেন এক ঝাঁক অতিথি। অতিথিদের মধ্যে ইউপি চেয়ারম্যান, আওয়ামী লীগ নেতা, কলেজের অধ্যক্ষ-সভাপতি, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। এদিকে, শহিদমিনারকে মঞ্চ হিসেবে ব্যবহার করে জুতা পায়ে অতিথিদের আসন দখল করা সংক্রান্ত কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে ফেসবুকে ভাসছে ছবিগুলো। যা দেখে শুরু হয়েছে তীব্র সমালোচনা। ভাষার মাসে শহিদমিনারের এমন অবমাননার বিষয়টি মানতে পারছেন না অনেকেই। চাইছেন জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা। তবে মঞ্চে থাকা অতিথিদের কেউ কেউ বলছেন, বিষয়টি তারা ততটা গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করেননি। মণিরামপুর উপজেলার হরিহরনগর ইউনিয়নের তিন নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মুনছুর আলী মোড়ল মারা গেছেন সম্প্রতি। তার স্মরণে শুক্রবার (৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে স্থানীয় মদনপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে শোকসভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন এলাকাবাসী। সভার মঞ্চ তৈরি করা হয় ওই বিদ্যালয়ের শহিদমিনারের পাদদেশে। রাখা হয় অতিথিদের জন্য চেয়ার-টেবিল। শহিদমিনারের স্তম্ভের সাথে টাননো হয় ব্যানার। নির্ধারিত সময়ে মঞ্চে আসন নেন হরিহরনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান শিক্ষক জহুরুল ইসলাম, হরিহরনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রিপনকুমার ধর, সম্মিলনী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ শফিকুল ইসলাম খোকনসহ ডজনখানেক ব্যক্তি। এই বিষয়ে জানতে চাইলে অতিথি রিপনকুমার ধর বলেন, শহিদমিনারের কাজ এখনো শেষ হয়নি। এইজন্য সেখানে মঞ্চ করা হয়েছে। অধ্যক্ষ শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘শহিদমিনারে জুতা পায়ে ওঠার বিষয়টি ওইভাবে ভেবে দেখিনি।’ ইউপি চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম বলেন, এলাকার ছেলেরা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। শহীদ মিনারে জুতা পায়ে উঠা ভুল হয়েছে। এই বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মণিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ জাকির হাসান বলেন, বিষয়টি কেউ জানায়নি। লিখিত অভিযোগ পেলে খতিয়ে দেখা হবে।

সম্প্রতি সংবাদ