ঘিওরে ভাষাসৈনিক কমরেড আঃ হাকিমের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি মেলেনি

editor ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ সারাদেশ

রামপ্রসাদ সরকার দীপু স্টাফ রিপোর্টার:১৮ ফেরুয়ারী-২০২১,বৃহস্পতিবার।
জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে প্রবীণ শিক্ষাবিধ ও ভাষা সৈনিক কমরেড আব্দুল হাকিম মাষ্টার। নিভৃত পল্লীর এ ভাষা সৈনিককে রাষ্ট্রীয়ভাবে আজও স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি। বর্তমানে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলা সদরে বর্তমানে তার বসবাস। ভাষা আন্দোলনের ৬৯টি বছর অতিবাহিত হবার পরেও তার ভাগ্যের কোন উন্নত্তি হয়নি।
কমরেড আব্দুল হাকিম মাষ্টার জানান, ১৯৫২ সালের মায়ের ভাষা বাংলাকে কেড়ে নিয়ে পাকিস্থানি শাসকগোষ্ঠী উর্দু ভাষাকে আমাদের উপর চাপিয়ে দিচ্ছে এটা আমরা কোন ভাবেই মেনে নিতে পারিনি। ১৯৪৮ সালের জিন্নাহ ঘোষনা দেয়ার পর থেকেই আমরা প্রতিবাদ প্রতিরোধ গড়ে তুলি। আন্দোলনের পক্ষে জনমত গঠন করতে থাকি। সংস্কৃতির শহর মানিকগঞ্জ ছিলো রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে উত্তাল। প্রতিটি আন্দোলনে তিনি রাজপথে থেকে সংগ্রাম করেছেন। আব্দুল হাকিম মাস্টার ১৯৬৫ সালে তেরশ্রী কে.এন.ইনষ্টিটিউশনের প্রধান শিক্ষক হিসাবে যোগদান করেন। ৫২’র ভাষা আন্দোলন এবং ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে এবং ৯০ স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে রাজপথে থেকে সক্রিয় আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন। তিনি উপজেলা কমিউনিষ্ট কমিউনিষ্ট পার্টির সভাপতির দায়িত্ব এবং পরে তিনি জেলা কমিউনিষ্ট পার্টির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৪৮ সালে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সফরকালে পাকিস্থানের স্থপতি ও গভর্নর জেনারেল মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ঘোষনা দেন বাংলার পরিবর্তে উর্দুই হবে পূর্ব বাংলার রাষ্ট্র ভাষা। এই ঘোষনার প্রতিবাদে সমগ্র বাঙ্গালী জাতি ক্ষোভে বিক্ষোভে ফেটে পরেন। মহানগর থেকে শুরু করে জেলা উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে আন্দোলন। মানিকগঞ্জের মানুষও আন্দোলন গড়ে তুলেন। দলে দলে ছাত্ররা নেমে পড়ে রাজপথে। সঙ্গে যুক্ত হয় নানা পেশার মানুষ। সেই সময় ১৯৪৯ সালে আঃ হাকিম মাস্টার তেরশ্রী কে. এন ইনষ্টিটিউশনের ১০ম ছাএ থাকাকালীন যুক্ত হয়ে পরেন ৫২’র ভাষা আন্দোলনে। ভাষা সৈনিক কমরেড আব্দুল হাকিম মাস্টার ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। তেরশ্রী কে. এন ইনষ্টিটিউশনের সহকারী শিক্ষক কমরেড প্রমোথ নাথ নন্দী এই আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন। তার সাথে যুক্ত হয় একই বিদ্যালয়ের প্রয়াত ক্রিয়া শিক্ষক আফছার উদ্দিন, মিরান উদ্দিন ও যতিন দাশ। এদের দু’ জনের প্রেরনায় আন্দোলন বেগবান হতে থাকে। ভাষা আন্দোলন সংগ্রাম পরিষদ’ এর ব্যানারে মানিকগঞ্জে ধীরে ধীরে যুক্ত হতে থাকে প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠন।
মানিকগঞ্জ জেলা কেন্দ্রীক ভাষা আন্দোলনের ব্যানারে যারা অংশ গ্রহন করেন তারা হলেন সহকারি শিক্ষক প্রমোথ নাথ নন্দি, ক্রীড়া শিক্ষক প্রয়াত আফছার উদ্দিন, কলেজ শিক্ষার্থী প্রমোথ সরকার, ডাঃ মোবারক আলী, ডাঃ আঃ ছালাম, আব্দুল হাকিম মাস্টার, আঃ রহমান ঠাকুর (ছাত্র), ভ’পেন দাশ ছাত্র (ছাত্র), ফনিন্দ্র নাথ সরকার (ছাত্র), মোঃ রেহাজ উদ্দিন (ছাত্র)। এ ছাড়া মানিকগঞ্জ সদরে যারা আন্দোলনে অংশ গ্রহন করেন তারা হলেন ডাঃ শামসুর রহমান, আনোয়ার আলী চৌধুরী, ওয়াবেশ উদ্দিন পাশা, জাফর আলী চোধুরী, প্রয়াত খন্দকার দেলোয়ার হোসেন, বাহাদুর আলী প্রমুখ। উল্লেখিত আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে তৎকালীন সরকার হুলিয়াজারী করেন। সকল আন্দোলনকারী ছাত্ররা গ্রেফতার এরিয়ে গোপনে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার চেষ্ঠা করেন। তবে দুঃখ জনক হলেও সত্য উল্লেখিত ভাষা সৈনিকদের সংগ্রামী কার্যকলাপের ওপর মানিকগঞ্জ জেলায় পৃথক কোন স্মৃতি নেই। এমনকি সবার ক্ষেত্রে আনুষ্ঠানিকভাবে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি মেলেনি। ভাষা সৈনিক কমরেড আব্দুল হাকিম মাস্টারের আরো বলেন, আমাদের মুল ¯েøাগান ছিল রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই। মিছিল আর ¯েøাগান দিয়ে ভাষার জন্য আমরা সংগ্রাম করেছি। মানিকগঞ্জ শহরে এবং ঘিওরে পৃথক- পৃথক মিছিল, সমাবেশ করার সময় পুলিশ আমাদের টার্গেট করে। এক পর্যায়ে পুলিশ ওয়াজেদ উদ্দিন,রেহাজ উদ্দিন, নিরঞ্জন ও যতিনকে গ্রেফতার করে মানিকগঞ্জ কারাগার থেকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। বহু জুলুম, অত্যাচার নির্যাতন সহ্য করে দিনের পর দিন পালিয়ে থেকেছি। বিনা কারনে রাষ্টদ্রোহী মামলা দিয়ে আমাদের আটক করা হয়। জেল কাটাতে হয়েছে দিনের পর দিন। পরবর্তীতে মামলাটি খারিজ হয়ে যায়। মায়ের ভাষার জন্য এ দেশের ছাত্ররা ঢাকা রাজপথে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছে। এত কিছুর পরেও বাংলা ভাষার প্রতি চলছে চরম অবজ্ঞা। সব বিতর্কের উর্দ্ধে উঠে সর্বস্তরে বাংলা ভাষার ব্যবহার বাস্তবায়ন করা হোক। বয়সের ভারে নুয়ে পরা আবেগাপ্লুত কন্ঠে কমরেড আব্দুল হাকিম মাস্টার আরো বলেন, যে ভাষার জন্য আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ৭১’ এর মুক্তিযুদ্ধে এ দেশ স্বাধীন হয়েছে। কিন্তু দীর্ঘদিন অতিবাহিত হবার পরেও ভাষা সৈনিকদের রাষ্ট্রীয় ভাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি । তিনি আর বলেন, ২১ শে ফেব্রæয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হওয়ার পর থেকে গর্ভে বুকটা ভরে গেছে। আবার দুঃখ হয়, আনন্দটা¤øান হয়ে যায়। যখন দেখি আমাদের দেশে সর্বস্তরে বাংলা ভাষার এখনও যথার্থ প্রয়োগ নেই। সব বিতর্কের উঠে সর্বস্তরে বাংলা ভাষার ব্যবহার বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন।
উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক ডেপুটি কমান্ডার কে এম সিদ্দিক আলী জানান, কমরেড আঃ হাকিম মাস্টার একজন ভাষা সৈনিক এবং দেশ প্রেমিক। তাকে শ্রদ্ধা এবং সম্মান করা আমাদের জাতির কর্তব্য। মানিকগঞ্জে জারা ৫২’ ভাষা আন্দোলনে অংশ গ্রহন করেছে তাদের সবাইকে শ্রদ্ধা জানাই। বাংলা ভাষার জন্য তাদের সংগ্রাম আন্দোলনের কথা সারা দেশের মানুষ মনে রাখবে। তবে সকল ভাষা সৈনিকদের রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দেওয়া প্রয়োজন।

সম্প্রতি সংবাদ