Logo
ব্রেকিং :
ভোলায় অবৈধ অটোরিক্সায় চাপায় এক পথশিশুর মৃত্যু কেন্দুয়ায় শীতার্থদের মাঝে রিপোর্টার্স ক্লাবের কম্বল বিতরণ আদমদীঘিতে চোলাই মদসহ গ্রেফতার ১ সান্তাহারে সাংবাদিক খোরর্শেদ আলমের ২১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত ভোলায় মাইক্রোবাস চাপায় এক নারী নিহত চারদিনেও পরিচয় শনাক্ত ও মৃত্যুর রসহ্য উদঘাটন হয়নি অজ্ঞাত লাশের নাগরপুরে জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা নতুন কমিটি গঠন ; সভাপতি আনোয়ার, সম্পাদক বাবু ঘিওরে ৯৭’ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের ‘রজত জয়ন্তীতে’ র‌্যালি ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠান দৌলতপুর থানায় ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্টে বিজয়ী যুবলীগ দৌলতপুর থানায় ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্টে রানার্স আপ দৌলতপুর প্রেসক্লাব
নোটিসঃ
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয়

টাঙ্গাইলে নির্বাচনী প্রচারণায় চলছে ব্যাপক শব্দ দূষণ ॥ স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে শিশু-কিশোররা

রিপোর্টার / ২২ বার
আপডেট মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ, ২০১৯

মুক্তার হাসান, টাঙ্গাইল থেকে ঃ২৬ শে মার্চ,মঙ্গলবার।
টাঙ্গাইলে নির্বাচনী প্রচারণায় চলছে ব্যাপক শব্দ দূষণ। দেশের প্রচলিত শব্দ দূষণ আইন থাকলেও তার নেই কোন প্রয়োগ। এর ফলে সাময়িক বধির বা স্থায়ী বধির রোগে আক্রান্ত হওয়ার দিকে ধাবিত হচ্ছে সাধারন মানুষ। এ েেত্র শিশু, কিশোররা রয়েছে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে।

টাঙ্গাইলের বিভিন্ন নির্বাচনী এলাকা ঘুরে দেখা যায়, উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে চলছে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা। এেেত্র মাইকের ব্যবহার সবচেয়ে বেশি। অধিকাংশ েেত্রই দেখা যাচ্ছে একসাথে ৮/১০টি মাইক একসাথে লাইন ধরে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছে উচ্চ শব্দে। আইনকে বৃদ্ধাংগুলী দেখিয়ে স্কুল-কলেজ, হাসপাতাল, বাজার, মসজিদ-মন্দির ও আবাসিক এলাকায় উচ্চ শব্দে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে প্রচারকারীরা। এমনকি যানজটে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থাতেও তারা থামছে না। রাস্তায় চলাচলকারীরা প্রতিবাদ করলেও তারা প্রচারণা বন্ধ করে না বরং তেড়ে আসে। তাই বাধ্য হয়েই কানে আংগুল দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে নয়তো শব্দের যন্ত্রণা সহ্য করতে হচ্ছে।

শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশে রয়েছে বেশ কিছু আইন ও নীতিমালা। শব্দ দূষণের গুরুত্ব বিবেচনায় রেখে ১৯৯৭ সালের পরিবেশ সংরণ আইনে শহরকে ৫ ভাগে ভাগ করা হয়েছে- নীরব এলাকা, আবাসিক এলাকা, মিশ্র এলাকা, শিল্প এলাকা, বাণিজ্যিক এলাকা। এসব এলাকায় দিন ও রাত ভেদে শব্দের মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আবাসিক এলাকায় ৫০ ডেসিবেল, বাণিজ্যিক এলাকায় ৭০ ডেসিবেল, শিল্প এলাকায় ৭৫ ডেসিবেল, নীরব এলাকায় ৪৫ ডেসিবেল, আবাসিক কাম বাণিজ্যিক এলাকায় ৬০ ডেসিবেল। এই আইন অনুযায়ী হাসপাতাল, শিা প্রতিষ্ঠান, সরকার নির্ধারিত কিছু প্রতিষ্ঠান থেকে ১০০ মিটার পর্যন্ত এলাকাকে নীরব এলাকা চিহ্নিত করা হয়। আইনানুযায়ী হাসপাতাল, শিা প্রতিষ্ঠান এবং সরকার নির্ধারিত কিছু প্রতিষ্ঠান থেকে ১০০ মিটার পর্যন্ত নীরব এলাকা হিসেবে চিহ্নিত। এসব জায়গায় মাইকিং করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রণ বিধিমালায় বলা আছে, আবাসিক এলাকার সীমানা থেকে ৫০০ মিটারের মধ্যে নির্মাণ কাজের ইট বা পাথর ভাঙার যন্ত্র ব্যবহার করা যাবে না। যানবাহনে অপ্রয়োজনে উচ্চ শব্দে হর্ণ বাজানো যাবে না। যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং করা যবে না। এই বিধির আওতায় স্কুল-কলেজ, হাসপাতাল, শিাপ্রতিষ্ঠান, অফিস-আদালতকে নীরব এলাকা হিসেবে ঘোষণা করা হয়। এসব প্রতিষ্ঠানের চতুর্দিকে ১০০ গজের ভেতরে কোনো প্রকার হর্ন বাজানো যাবে না। আরো বলা হয়েছে, কোনো উৎসব, সামাজিক বা রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে লাউড স্পিকার, এমপ্লিফায়ার বা কোনো যান্ত্রিক কৌশল ব্যবহার করতে হলে কর্তৃপরে পূর্বানুমতি লাগবে। এসব কার্যক্রম সর্বোচ্চ পাঁচ ঘণ্টার বেশি হবে না। পাশাপাশি রাত ১০টার পর কোনো ভাবেই শব্দ দূষণকারী যন্ত্র ব্যবহার করা যাবে না।

এবিষয়ে বেশ কয়েকজন প্রচারকর্মীর সাথে কথা বললে তারা এই সম্পর্কে কোন আইন আছে বলে জানেই না। বাসাইল এলাকার প্রচারকর্মী কামাল হোসেন জানান, এত বছর ধরে মাইক মারতাছি, কেউ তো কিছু কয় না। মাইক মারার উপরেও আইন আছে নাকি?

কালিহাতীর প্রচারকর্মী সুজন বলেন, কন কি? মাইক মারার আইন! আইজক্যাই হুনলাম। বীর মুক্তিযোদ্ধ আনোয়ার হোসেন তালুকদার বলেন, কি আর বলব? স্বাধীন দেশ, যার যা খুশি তাই করে। মানুষের চিন্তা কেউ করে না। এই ভাবে উচ্চ শব্দে মাইক বাজিয়ে প্রচারণা মানে, মানুষকে অত্যাচার করা। বটতলা এলাকার বাদাম বিক্রেতা জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ভাই কানে আঙ্গুল দিয়েও রেহাই পাই ন্যা। এই যে এতগুলা মাইক দিয়া একসাথে কি যে কইতাছে, কিছুই তো বুঝা যায় না। মধ্যে থিকা কানের কাম সারা।

ইতালী প্রবাসী লিপন খান বলেন, আমি ১৪ বছর যাবৎ ইতালীতে থাকি; আজ পর্যন্ত একদিনও এই রকম উচ্চ শব্দে মাইক শুনি নাই। কোন ভাবেই সম্ভব না। ওখানে সবাই আইনকে সম্মান করে, আইন মেনে চলে।

টাঙ্গাইলের নির্বাচন কমিশনার কামরুল ইসলাম বলেন, এটি নির্বাচনী আচরণ বিধির সুস্পষ্ট লংঘন। আচরণ বিধির ২১ অনুচ্ছেদ “মাইক্রোফোন ব্যবহার সংক্রান্ত বিধি-নিষেধ” এ বলা হয়েছে, (১) কোন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বা তাহার পে কোন রাজনৈতিক দল অন্য কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান একটি ইউনিয়নে অথবা পৌরসভায় পথসভা বা নির্বাচনী প্রচারণার কাজে একের অধিক মাইক্রোফোন বা শব্দের মাত্রা বর্ধনকারী অন্যবিধ যন্ত্র ব্যবহার করিতে পারিবেন না। এব্যপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য একজন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বলেন, উচ্চ শব্দ একটি নিরব ঘাতক। যা মানুষকে বিভিন্নভাবে আক্রান্ত করে। তিনি বলেন, এলাকাভেদে (আবাসিক, বাণিজ্যিক, নিরব, শিল্প) শব্দের বিভিন্ন মাত্রা নির্ণয় করা আছে। কিন্তু টাঙ্গাইলে সেই এলাকা গুলো নির্ণয় করা নাই। তাই আমরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে পারছি না। তারপরও আমি এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

কালের কাগজ/প্রতিনিধি/জা.উ.ভি


এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com