Logo
ব্রেকিং :
বঙ্গবন্ধু শুরুর সময়, একটি ডলারও ছিল না- মানিকগঞ্জে গৃহায়ন মন্ত্রী রাণীশংকৈলে প্রাণীসম্পদ প্রদর্শনীর উদ্বোধন উপলক্ষে আলোচনা সভা  নবাবগঞ্জে প্রাণী সম্পদ প্রদর্শনী-২০২৪ উদ্বোধনী /সমাপনী অনুষ্ঠান সমাজসেবার বিশেষ অবদানে সম্মাননা স্মারক পেলেন দৌলতদিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান রহমান মন্ডল ভিক্ষা ছেড়ে  বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বিশেষ চাহিদা সম্পর্ণ রতনদের পাশে প্রশাসন। টাঙ্গাইল শহরে থমথমে অবস্থা ॥ ককটেল বিস্ফোরণ আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি সমাবেশ পুলিশি বাঁধায় পন্ড  দৌলতপুরে প্রাণি সম্পদ প্রদর্শণী নাগরপুরে প্রাণীসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী  অনুষ্ঠিত  ঘুমন্ত স্বামীর গোপণাঙ্গ কেটে সন্তান রেখেই পালালেন স্ত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস ২০২৪ উদযাপন উপলক্ষে র‍্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
নোটিসঃ
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয়

দাম বেশি পাওয়ায় খুশি ভূঞাপুরের পাট চাষীরা

রিপোর্টার / ৬৮ বার
আপডেট শনিবার, ২০ আগস্ট, ২০২২

মুক্তার হাসান,টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:২০ আগস্ট-২০২২,শনিবার।

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে চলতি বছরে যমুনা চরাঞ্চল সহ উপজেলায় পাট চাষের লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। উপজেলায় সাড়ে ৪ হাজার হেক্টর জমিতে পাট চাষ করা হয়েছে। গত বছর ৪ হাজার ২’শ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হলেও এবছর আরো ৩’শ হেক্টর জমিতে পাট চাষ বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে চলতি বছরের বন্যায় উপজেলার যমুনা চরাঞ্চলে বেশ কিছু পাট পানিতে তলিয়ে নষ্ট হয়ে যায়। এর ফলে চরাঞ্চলের বেশ কিছু কৃষক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। এখানকার মাটি ও আবহাওয়া পাট চাষের অনুকূলে থাকায় এবছর পাটের ফলন ভালো হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা কৃষি সম্পসারণ অধিদপ্তর। সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার গুলোতে দেখা যায়, উপজেলার চরাঞ্চলের কৃষকেরা কাক ডাকা ভোরে ইঞ্জিন চালিত নৌকায় পাট বিভিন্ন হাটে বিক্রির জন্য নিয়ে আসতে শুরু করেন। সেখান থেকে ব্যাটারি চালিত অটো ভ্যানে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে নিয়ে যান। স্থানীয় হাটগুলোতে প্রতি মন পাট বিক্রি হচ্ছে ৩০০০ হাজার থেকে ৩৩০০ টাকায়। গাবসারা গ্রামের পাট চাষী মিনহাজ উদ্দিন বলেন, অন্যান্য বছরের চেয়ে এবছর আমাদের চরাঞ্চলে পাটের আবাদ ভালো হয়েছে। পাট আবাদে খরচ ও ঝুঁকি অনেক কম। আমদের স্থানীয় হাটগুলোতে পাটের দাম মোটামুটি ভালো। গোবিন্দাসী হাটে পাট বিক্রি করতে আসা কৃষক তারা মিয়া বলেন, আজকে গোবিন্দাসী হাটে পাটের বাজার মোটামুটি ভালো। আমি আজকে ১৪ মন পাট নিয়ে এসেছিলাম। প্রতি মন ৩১০০ টাকা দরে বিক্রি করেছি। তবে এবছর পাটের বাজার ভালো পাওয়ায় আমি খুশি। তারা মিয়ার মতো পাট বিক্রি করতে আসা কৃষক লাল মিয়া বলেন, আজকে আমি ৯ মন পাট হাটে নিয়ে এসেছি। এরমধ্যে একটু নিম্ন মানের ৩ মন পাট বিক্রি করেছি ২৮০০ টাকা করে এবং বাকি ৬ মন ভালো মানের পাট বিক্রি করেছি ৩১০০ টাকা করে। এবছর পাট আবাদ করে আমরা অনেকটা লাভবান হয়েছি। হাটে আসা পাটের পাইকার (ক্রেতা) জুয়েল রানা বলেন, পাটের আরোদ মালিদের রেটে বিভিন্ন হাট থেকে আমরা পাট কিনছি। বর্তমানে আমরা ভালো মানের প্রতি মন পাট ৩ হাজার থেকে ৩ হাজার ৩ শত টাকা এবং একটু নিম্ন মানের পাট ২৭’শ থেকে ৩ হাজার টাকায় কিনতেছি। তবে যমুনা তীরবর্তী গোবিন্দাসীর এই হাটটিতে ভালো মানের পাট বেশি আমদানি হয়। এবিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ হুমায়ুন কবীর বলেন, গত বছরের চেয়ে এবছর যমুনা চরাঞ্চল সহ উপজেলায় পাটের আবাদ বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে পাটের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য কৃষকদেরকে মাঠদিবস ও বিভিন্ন পরামর্শ সহ বিনামূল্যে সার ও বীজ দিয়েছি। আমাদের উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায়ে গিয়ে নিয়মিত পরিদর্শন ও কৃষকদের পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি আরো বলেন, উপজেলায় সাড়ে ৪ হাজার হেক্টর জমিতে পাট চাষ করা হয়েছে। যার লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৭ হাজার ৫৮৯ বেল। এবছর পাটের দাম ভালো হওয়ায় আগামীতে আরো বেশি জমিতে পাটের আবাদ হবে বলে আশাবাদী।


এ জাতীয় আরো খবর
Tech Support By Nagorikit.Com