Logo
ব্রেকিং :
হস্ত ও কুটির শিল্পকে বিশ্ব বাজারে পৌছে দেয়া হবে—– বানিজ্য প্রতিমন্ত্রী দৌলতপুরে উপজেলা প্রশাসনের বাংলা নববর্ষ ১৪৩১ উদযাপন নগরকান্দা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বাংলা নববর্ষ ১৪৩১ উদযাপন দৌলতপুরে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের সাথে সাবেক সাংসদ দূর্জয়ের শুভেচ্ছা বিনিময় নাগরপুরে আ.লীগ নেতাকর্মীদের ঈদ উপহার পৌঁছে দিয়েছেন তারানা হালিম এমপি রাণীশংকৈলে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধার মৃত্যু মির্জাপুরে ফিল্মি স্টাইলে অপহরণকারী আটক রাজবাড়ীতে ‘হার পাওয়ার’ প্রকল্পের আওতায় নারীদের মাঝে ল্যাপটপ বিতরণ করেন—–রেলপথ মন্ত্রী মোঃ জিল্লুল হাকিম নাগরপুরে একতা সাংস্কৃতিক উন্নয়ন সংস্থার বস্ত্র বিতর  নাগরপুরে শিল্প উদ্যোক্তা কোমলের উদ্যোগে মুসল্লিদের ঈদ উপহার প্রদান
নোটিসঃ
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয়

দৌলতপুরে স্ত্রী-সন্তানকে হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি জাকিরকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব

রিপোর্টার / ১০৬ বার
আপডেট শুক্রবার, ৫ আগস্ট, ২০২২

কালের কাগজ ডেস্ক :০৫ আগস্ট ২০২২, শুক্রবার।
মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার পংতিরছা গ্রামে   ভাবির  সঙ্গে পরকীয়ার জেরে স্ত্রী ও কন্যাসন্তানকে হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি জাকির হোসেনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। বৃহস্পতিবার রাতে সাভারের শাহীবাগ থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

শুক্রবার রাজধানীর কাওরান বাজারে মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক মোজাম্মেল হক বলেন, ২০০০ সালের ফেব্রুয়ারিতে জাকির হোসেনের সঙ্গে বিয়ে হয় নিপা আক্তারের। বিয়ের পর তাকে যৌতুকের দাবিতে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকেন। এরই মধ্যে তাদের ঘরে এক কন্যাসন্তানের জন্ম হয়। পরে নিপা আবার অন্তঃসত্ত্বা হন। এ সময় জাকিরের সঙ্গে তার ভাবির প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

২০০৫ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি রাতে বড় ভাই বাড়িতে না থাকার সুযোগে জাকির ভাবির ঘরে গেলে তাদের আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলেন নিপা। নিপা বড় ভাইকে সব বলে দেওয়ার হুমকি দিলে জাকির ক্ষুব্ধ হন। এ সময় দুজনের মধ্যে ঝগড়া হয়।

এর জেরে পরদিন রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় নিপাকে গলায় গামছা পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেন জাকির। এ সময় তিনি তার তিন বছর বয়সি শিশুকন্যাকেও হত্যা করেন। এ ঘটনায় নিপা আক্তারের বাবা আবু হানিফ  হানু  মেম্বার বাদী হয়ে দৌলতপুর থানায় মামলা করেন।

মামলার পর জাকির গ্রেফতারও হন। তবে পাঁচ বছর কারাভোগের পর ২০১০ সালে জামিনে ছাড়া পেয়ে আত্মগোপনে চলে যান তিনি। ২০২১ সালের ১২ জানুয়ারি আদালতের রায়ে জাকিরের মৃত্যুদণ্ড হয়। এ ছাড়া হত্যাকাণ্ডে জড়িত আরও কয়েকজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, জাকির প্রথমে পালিয়ে সাভারে যান। পরে তিনি বাউলের ছদ্মবেশ ধারণ করেন। ২০১৩ সালে আবার বিয়ে করে জিনজিরায় থাকা শুরু করেন। তবে এক জায়গায় বেশিদিন থাকতেন না তিনি। গ্রেফতার এড়াতে চট্টগ্রাম, ঢাকার আরামবাগ, ফকিরাপুল, হাজারীবাগ ও খিলগাঁওয়েও ছিলেন। গ্রেফতারের আগ পর্যন্ত বাউল ছদ্মবেশেই বিভিন্ন গানের দলের সঙ্গে ঘুরে বেড়িয়েছেন।


এ জাতীয় আরো খবর
Tech Support By Nagorikit.Com