Logo
ব্রেকিং :
সার্ভিক্যাল রোগে আক্রান্ত সাদিয়ার চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন- দুর্জয় কেন্দুয়ায় হ্যান্ডট্রলির ধাক্কায় শিশুছাত্রের মৃত্যু দৌলতদিয়া পদ্মা নদীর তীর থেকে অজ্ঞাত যুবকের অর্ধ গলিত লাশ উদ্ধার ভাইরাল কিংবা ভিউয়ের জন্য গান করি না— ক্লোজআপ ওয়ান তারকা সাজু এটি প্রথম আলোর ষড়যন্ত্র: হানিফ প্রতিনিয়ত পত্রিকাটি মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করছে : বিপ্লব বড়ুয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আটক সাংবাদিকদের মুক্তির দাবিতে মানিকগঞ্জে মানববন্ধন নেত্রকোনায় ত্রান ও পুর্নবাসন শাখার আয়োজনে কর্মশালা নতুন শিক্ষাক্রম যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে -অঞ্জনা খান মজলিশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে নেত্রকোনা জেলা আ’লীগ সভাপতি-সম্পাদকের সৌজন্য স্বাক্ষাত
নোটিসঃ
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয়

নাগরপুরে ১০ টাকা কেজি’র চাল খোলা বাজারে বিক্রির দাবী

রিপোর্টার / ২২ বার
আপডেট শুক্রবার, ১০ এপ্রিল, ২০২০

নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ১০ এপ্রিল-২০২০,শুক্রবার।
করোনাভাইরাসের প্রভাবে বেকার হয়ে পড়া কর্মহীন জনগোষ্ঠীর জন্য টাঙ্গাইলের নাগরপুরে খোলা বাজারে ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রির দাবী করছেন অনেকেই। খোজ নিয়ে জানা যায়, করোনা ভাইরাসের প্রভাবে নাগরপুর উপজেলার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার প্রায় ৩ হাজার মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। কর্মহীন বিপুল এ জনগোষ্ঠীকে সরকারি ত্রাণের আওতায় আনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে প্রশাসনকে। যে পরিমান ত্রাণ সরকারি ভাবে দেওয়া হচ্ছে তা কর্মহীন মানুষের তুলনায় অপ্রতুল। তাই বিপুল এ জনগোষ্ঠীকে বাচাতে হলে খাদ্য সামগ্রী সরবরাহের বিকল্প নেই। তাই শুধু কার্ডধারীদের মাঝে ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি না করে সর্বসাধারনের জন্য তা উম্মুক্ত করে দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন কর্মহীন এ সকল মানুষ।
উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর আওতায় নাগরপুর উপজেলায় ২৪ জন ডিলারের মাধ্যমে ১৩৩৭২ জন হতদরিদ্র কার্ডধারীদের মাঝে জনপ্রতি ৩০ কেজি করে চাল বিক্রি কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ক্ষেত্রে কার্ডধারী ব্যতিত কারো কাছে চাল বিক্রি করা যাবে না। এ ব্যাপারে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা আইয়ুব রায়হান জানান, খোলা বাজারে চাল বিক্রির কোন নির্দেশনা পাইনি। এখন শুধু পৌরসভা পর্যায়ে খোলা বাজারে চাল বিক্রির কার্যক্রম চালু আছে। যদি উপজেলা পর্যায়ে খোলা বাজারে চাল বিক্রির নির্দেশনা আসে তাহলে অবশ্যই নাগরপুরের প্রকৃত হত দরিদ্র মানুষ স্বল্পমূল্যে চাল কিনতে পারবে।
নাগরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ ফয়েজুল ইসলাম জানান, করোনা মোকাবেলায় সরকারের ডাকে দেশবাসী সারা দিয়ে কর্মস্থল ত্যাগ করে নিজ ঘরে অবস্থান করছেন। তাদের যেন খাবার সংকটে পড়তে না হয় সেজন্য সরকার খাদ্য সহায়তা দিচ্ছেন। পাশাপাশি ইউনিয়নগুলোতে সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর আওতায় ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি অব্যাহত রয়েছে। এর বাইরে যদি সরকার উপজেলা পর্যায়ে ওএমএস চালু করে তাহলে নি¤œ আয়ের মানুষের কষ্ট কিছুটা লাঘব হবে।


এ জাতীয় আরো খবর
Tech Support By Nagorikit.Com