Logo
ব্রেকিং :
বঙ্গবন্ধু শুরুর সময়, একটি ডলারও ছিল না- মানিকগঞ্জে গৃহায়ন মন্ত্রী রাণীশংকৈলে প্রাণীসম্পদ প্রদর্শনীর উদ্বোধন উপলক্ষে আলোচনা সভা  নবাবগঞ্জে প্রাণী সম্পদ প্রদর্শনী-২০২৪ উদ্বোধনী /সমাপনী অনুষ্ঠান সমাজসেবার বিশেষ অবদানে সম্মাননা স্মারক পেলেন দৌলতদিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান রহমান মন্ডল ভিক্ষা ছেড়ে  বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বিশেষ চাহিদা সম্পর্ণ রতনদের পাশে প্রশাসন। টাঙ্গাইল শহরে থমথমে অবস্থা ॥ ককটেল বিস্ফোরণ আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি সমাবেশ পুলিশি বাঁধায় পন্ড  দৌলতপুরে প্রাণি সম্পদ প্রদর্শণী নাগরপুরে প্রাণীসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী  অনুষ্ঠিত  ঘুমন্ত স্বামীর গোপণাঙ্গ কেটে সন্তান রেখেই পালালেন স্ত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস ২০২৪ উদযাপন উপলক্ষে র‍্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
নোটিসঃ
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয়

ফুলঝাড়– শিল্পে স্বচ্ছলতা ফিরেছে চরাঞ্চলবাসীর

রিপোর্টার / ৬৭ বার
আপডেট শনিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২

মুক্তার হাসান,টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:০৩ সেস্টেম্বর-২০২২,শনিবার।

ঘর পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করার কাজে ফুলঝাড়– (উলুফুল) এর জুড়ি নেই। গ্রামগঞ্জ থেকে শুরু করে শহর বন্দরের প্রায় প্রতিটি ঘরেই রয়েছে ঝাড়–র কদর। পাহাড়ী অঞ্চলে প্রাকৃতিকভাবে জন্মানো এ ফুল ঝাড়– স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে বিক্রির জন্য দেশের বিভিন্ন জেলায় নেওয়া হচ্ছে। আর এ ফুলঝাড়– বিক্রি করে আর্থিক ভাবে লাভবান হচ্ছেন এলাকার মানুষেরা। টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার যমুনা তীরবর্তী এলাকার মানুষের স্বচ্ছলতা ফিরছে ফুলঝাড়– শিল্পে। যমুনার প্রবল ভাঙ্গনে দুর্গাপুর ও গোহালিয়াবাড়ী ইউনিয়নের নদী পাড়ের বাসিন্দারা প্রতিবছরই বিভিন্নভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এসব এলাকার মানুষেরা বছরের অর্ধেকটা সময় কর্মহীন হয়ে পড়ে। কিন্তু স্থানীয় কয়েকজন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা ফুল ঝাড়– তেরির কারখানা সৃষ্টি করায় এ অঞ্চলের নি¤œ আয়ের মানুষের মধ্যে স্বচ্ছলতা ফিরে এসেছে। সরোজমিনে এসব এলাকায় দেখা যায় ছোট আকারের প্রায় ৫০টি কারখানা গড়ে ওঠেছে। আর এসব ঝাড়– শিল্পের বিভিন্ন সেক্টরে প্রায় ৫-৬শ নারী-পুরুষের কর্ম সংস্থানের জোগাড় হয়েছে। এসব শিল্প সংশ্লিষ্টরা জানায় প্রায় ১০-১২ বছর আগে পটল বাজার এলাকার নজরুল ইসলাম নুরু, আব্দুল হাই, সোলেমান ও মাজেদ মিলে চট্টগ্রামের খাগড়াছড়ি এলাকা থেকে স্বল্প পরিসরে উলুফুল (ফুল ঝাড়–র ফুল) এনে স্থানীয় শ্রমিকদের দিয়ে বাধাই করে ঢাকায় হকারদের মাধ্যমে বিক্রি করেন। ব্যবসাটি লাভজনক হওয়ায় তারা ব্যবসার প্রসার ঘটায়। এছাড়া শ্রমিকারও উৎপাদনের ভিত্তিতে এসব কারখানায় কাজ করে প্রতিদিন ৪/৫শ টাকা উপার্জন করে। আর তাদের উপার্জিত টাকায় পরিবার-পরিজন নিয়ে তারা সাচ্ছন্দেই আছেন বলে জানান পটল বাজারের শ্রমিক সেলিম, সুজন, পারভেজ, বাছেদ, সাইফুল সহ অনেকেই। পুরুষ শ্রমিকরা উলুফুল ও পাটখড়ির সাথে গুনা দিয়ে বেধে সুন্দর মোঠা (আটি) তৈরি করে। পরে ওই বাধাই করা মোঠা গুলোতে কস্টেপ অথবা পিভিসি পাইপ লাগিয়ে নারী শ্রমিকরা বাজারজাত করার উপযোগী করে তোলে। এসব কারখানা গুলো মুলত কালিহাতী উপজেলার মগড়া বাজার, পটল বাজার, দূর্গাপুর, কদিমহামজানী, বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব পাড়, শ্যামশৈল, কুর্ষাবেনু ও পাথরঘাট এলাকায় গড়ে ওঠেছে। পটল বাজারের ফুল ঝাড়– ব্যবসায়ি নজরুল ইসলাম নুরু জানান একসময় এব্যবসার সুদিন থাকলেও এখন ব্যবসায় কোন শান্তি নেই। পার্বত্য চট্টগ্রাম, খাগড়াছড়ি, বান্দরবন ও রাঙ্গামাটি এলাকা থেকে এসব উলুফুল খুবই কম দামে কিনে আনেন। কিন্তু মহাসড়কে পুলিশ ও বনবিভাগের নানা তালবাহানার ফলে ওই ফুলের দাম বিশ গুণেরও বেশি পড়ে যায়। অপরদিকে তেলের মূল্য বৃদ্ধির কারণে পরিবহন খরচও বেড়েছে। এমতাবস্থায় এখন তাদের এ শিল্প পরিচালনা দুস্কর হয়ে পড়েছে। তাছাড়া এ শিল্প বন্ধ হয়ে গেলে নদী তীরবর্তী প্রায় এক হাজার নারী ও পুরুষ শ্রমিক কর্মহীন হয়ে পড়বে। তিনি নিজের বাড়ীতে ৩০ শতাংশ ভূমিতে উলুফুল চাষ শুরু করেছেন। যাতে এসব এলাকার উৎপাদিত উলুফুল দিয়েই কারখানাগুলো সচল রাখা যায়। দূর্গাপুর ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম জানান, চরাঞ্চলে ফুলঝাড়– কারখানা সৃষ্টি হওয়ায় যমুনার ভাঙন কবলিত কর্মহীন মানুষের মধ্যে স্বচ্ছলতা ফিরে এসেছে। এসব ক্ষুদ্র শিল্প টিকিয়ে রাখার স্বার্থে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি প্রয়োজন।


এ জাতীয় আরো খবর
Tech Support By Nagorikit.Com