Logo
ব্রেকিং :
বারহাট্রায় ৫ জুয়ারি আটক নেত্রকোনা পল্লী বিদ্যুত সমিতির ২৬তম বার্ষিক সাধারন সভা দৌলতপুরে আইন -শৃংখলা ও মাদকবিরোধী সভা অনুষ্ঠিত বিরামপুরের ৪নং দিওড় ইউনিয়নে ভিডব্লিউবির চাল বিতরণ সিরাজগঞ্জে সিএনজি-মাইক্রোবাসের সংঘর্ষ  নিহত ১ সিরাজগঞ্জে  তিন ক্লিনিক- ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে দুই লাখ ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা টাঙ্গাইলে জাতীয় পথনাট্যোৎসব অনুষ্ঠিত টাঙ্গাইল কমিউটার ট্রেনের ইঞ্জিন বিকল চার ঘণ্টা পর ঢাকার সঙ্গে উত্তরাঞ্চলের রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক সিরাজগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে শ্লীলতাহানির ঘটনায় গ্রেফতারকৃত আওয়ামী লীগ নেতার মুক্তির দাবিতে থানা ঘেরাও সিরাজগঞ্জে  মেয়েকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় বাবাকে মারপিট আটক-৪
নোটিসঃ
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয়

সখীপুরে বনের জমিতে রাতারাতি ঘরবাড়ি

রিপোর্টার / ৮৬ বার
আপডেট মঙ্গলবার, ২৩ আগস্ট, ২০২২

মুক্তার হাসান ,টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:২৩ আগস্ট-২০২২,মঙ্গলবার।

টাঙ্গাইলের সখীপুরে অনেকটা নীরবেই দখল হচ্ছে বনের জমি। বনের ভেতর রাতারাতি নতুন ঘরবাড়ি নির্মাণ করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। গত কয়েক মাসে উপজেলার কালিদাস বিট এলাকার কামারপাড়া ও বোয়ালী গ্রামে বেশ কয়েকটি নতুন ঘরবাড়ি নির্মিত হয়েছে। এ ঘটনায় বন বিভাগের কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট প্লটমালিকেরা নীরব ভূমিকা পালন করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন, বন কর্মকর্তাদের সঙ্গে অবৈধ সমঝোতা করেই এসব জমি দখলে নেওয়া হচ্ছে। আর এতে সহযোগিতা করছেন স্থানীয় বেশ কয়েকটি দালাল চক্র। সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার কীর্তনখোলা কামারপাড়া এলাকায় বনের ভেতরে গাছ কেটে পাকা ভবন নির্মাণ করছেন প্রবাসী শাহজাহান মিয়া ও আতোয়ার হোসেন। পাশেই আরও কয়েকটি ঘর নির্মাণের পাঁয়তারা চলছে। বন বিভাগ এবং স্থানীয় দালালদের সন্তুষ্ট করেই বাড়ি নির্মাণ করেছেন বলে জানান তাঁরা। আতোয়ার হোসেন বলেন, ‘নতুন করে নয়, এখানে আমার পুরোনো বাড়ি ছিল। সেই বাড়িতেই নতুন ঘর দিয়েছি।’ এদিকে উপজেলার বোয়ালী পূর্বপাড়া গ্রামের আবুল হাশেম বনের জমিতে ইটের সীমানাপ্রাচীর দিয়ে পাকাবাড়ি নির্মাণ করছেন। এতে সংশ্লিষ্ট বন কর্মকর্তা বাধা দিয়ে বন আইনে মামলা করলেও নির্মাণকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। তবে আবুল হাশেমের দাবি, বন উজাড় করে নয়, দীর্ঘদিনের পুরোনো বাড়িতে একটি টিনশেড পাকাঘর নির্মাণ করছেন তিনি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কীর্তনখোলা কামারপাড়া গ্রামের একাধিক বাসিন্দা জানান, এক ব্যক্তি তাঁর দীর্ঘদিনের পুরোনো বাড়িতে একটি থাকার ঘর তুলছিলেন, ওই বাড়িতে কালিদাস বিট কর্মকর্তা শাহ আলম বাধা দেন এবং একজনকে আটক করে নিয়ে যান। এই ঘটনায় কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলাও করা হয়েছে। অথচ তার পাশেই বনের ভেতর বাড়ি হচ্ছে এ নিয়ে বন বিভাগের কোনো পদক্ষেপ নেই। স্থানীয় লোকজন ক্ষোভ প্রকাশ করে আরও বলেন, স্থানীয় কালু মিয়া, আবদুল হাই, লাল মাহমুদসহ কতিপয় ব্যক্তির মাধ্যমে বন কর্মকর্তাদের সঙ্গে সমঝোতা করে কালিদাস বিটের বিভিন্ন এলাকায় নতুন করে ঘরবাড়ি নির্মিত হচ্ছে। দালাল ও বন কর্মকর্তাদের সন্তুষ্ট করে বনের জমিতে যা ইচ্ছা তাই করা যায়, তাঁদের বিরোধিতা করলেই হতে হয় মামলা ও হয়রানির শিকার। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কালু মিয়া, আবদুল হাই ও লাল মাহমুদ বলেন, মূলত তাঁরা বন বিভাগের সৃজিত সামাজিক বনায়নের উপকারভোগী। এ ছাড়া বন বিভাগের সঙ্গে তাঁদের অন্য কোনো সম্পর্ক নেই। অনেকেই শত্রুতাবশত তাঁদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও মনগড়া অপবাদ দিচ্ছে। বন বিভাগের হাতেয়া রেঞ্জের কালিদাস বিট কর্মকর্তা মো. শাহ আলম আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমি স¤প্রতি কালিদাস বিটে যোগদান করেছি। কিন্তু ওই সব ঘরবাড়ি চার থেকে পাঁচ মাস আগেই নির্মাণ হয়েছে। ইতিমধ্যে কয়েকটি বাড়িঘরের নির্মাণকাজ বন্ধ করেছি, মামলাও করেছি।’ ঘরবাড়ি নির্মাণে বন বিভাগর কোনো সমঝোতা বা স¤পৃক্ততা নেই। কেউ বনের জমি দখল করে ঘরবাড়ি নির্মাণ করলে তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


এ জাতীয় আরো খবর
Tech Support By Nagorikit.Com