Logo
ব্রেকিং :
নাগরপুরে আ.লীগ নেতাকর্মীদের ঈদ উপহার পৌঁছে দিয়েছেন তারানা হালিম এমপি রাণীশংকৈলে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধার মৃত্যু মির্জাপুরে ফিল্মি স্টাইলে অপহরণকারী আটক রাজবাড়ীতে ‘হার পাওয়ার’ প্রকল্পের আওতায় নারীদের মাঝে ল্যাপটপ বিতরণ করেন—–রেলপথ মন্ত্রী মোঃ জিল্লুল হাকিম নাগরপুরে একতা সাংস্কৃতিক উন্নয়ন সংস্থার বস্ত্র বিতর  নাগরপুরে শিল্প উদ্যোক্তা কোমলের উদ্যোগে মুসল্লিদের ঈদ উপহার প্রদান চাহিদার তুলনায় বিদ্যুৎ সরবরাহ অর্ধেক \ তাপমাত্রা ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস টাঙ্গাইলে মাত্রারিক্ত লোডশেডিংয়ে জনজীবনে নাভিশ্বাস দৌলতদিয়ায় ১৫’শ সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মাঝে উত্তোরণ ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার বিতরন।  ২৪ ঘণ্টায় দুই কোটি ৩৫ লাখ ৪৯ হাজার ৮০০ টাকা টোল আদায় বঙ্গবন্ধু সেতু-ঢাকা মহাসড়কে একমুখী যান চলাচল কার্যকর দৌলতপুরে আওয়ামীলীগের দোয়া ও ইফতার মাহফিল
নোটিসঃ
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয়

স্কুল ছেড়ে বাবার চায়ের দোকানে চা বিক্রি করে  সংসার চালায় শিশু সুমাইয়া

রিপোর্টার / ১৩৮ বার
আপডেট সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

এইচএম মোকাদ্দেস,সিরাজগঞ্জ :১৮ সেপ্টেম্বর-২০২৩,সোমবার।
যে বয়সে বই খাতা নিয়ে স্কুলে যাওয়ার কথা,সেই বয়সে বইখাতা রেখে চা বিক্রি করে সংসার চালাতে হচ্ছে  ৪র্থ শ্রেণি পড়ুয়া শিশু সুমাইয়াকে। শিশু সুমাইয়া (১২)  সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার গাঁড়াদহ ইউনিয়নের গাঁড়াদহ বুধবার হাটখোলা এলাকার মো: সায়েম আলী ফকির(৬৫) এর ৪র্থ মেয়ে।
৫ম শ্রেণিতে ওঠার পর গত ১ বছর আগে বাবা মো: সায়েম আলী ফকির কঠিন অসুখে আক্রান্ত হয়ে শয্যাশায়ী হয়ে পড়ে। অনেক চিকিৎসা করেও ভাল হয় না। এদিকে সংসারে আয় উপার্জনের আর কোনো পুরুষ মানুষ না থাকায় সুমাইয়া স্কুল ছেড়ে তার বাবার চায়ের দোকানে চা বিক্রি করে সংসার চালানো শুরু করে।গত ৩ মাস আগে তার বাবার যক্ষা রোগ সনাক্ত হয়।শেষ সময়ে রোগ ধরা পড়ায় চিকিৎসা খরচ নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে সুমাইয়ার পরিবার।
এ বিষয়ে সুমাইয়ার বাবা মো: সায়েম আলী ফকির বলেন,আমার কোনো বাড়িঘর নেই। সরকারি খাস জায়গায় এলাকাবাসির দানের টাকায় একটি দোচালা ঘর তুলে স্ত্রী সন্তান নিয়ে থাকি। এর উপর মরণঘাতি যক্ষা রোগে আক্রান্ত হয়ে শয্যাশায়ী হয়ে মৃত্যুর প্রহর গুণছি। সংসার চালানোর মত আর কোনো উপায় না থাকায় শিশু মেয়ে সুমাইয়াকে  দিয়ে চা বিক্রি করে সংসার চালাতে হচ্ছে। তিনি এ বিষয়ে দেশের হৃদয়বান ব্যক্তিদের  সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে অনুরোধ করেছেন।
চা বিক্রেতা শিশু সুমাইয়া বলেন, চা বিক্রি না করলে খাব কি। বাবার ওষুধ কিনব কিভাবে। তাই স্কুল ছেড়ে চায়ের দোকানে চা বিক্রি করি। সারাদিনে  ১৫০ থেকে ২০০ কাপ চা বিক্রি করে ২/৩‘শ টাকা আয় হয়। এ দিয়ে চাল-ডাল কেনার পর অবশিষ্ট টাকা দিয়ে বাবার ওষুধ কিনি। এ ভাবেই গত ১ বছর ধরে চলছে আমাদের অতি কষ্টের সংসার। সে আরও বলে আমি আবার স্কুলে যেতে চাই। পড়া লেখা করতে চাই। তাই আমাকে বিত্তবানরা আর্থিক সহযোগিতা করলে আমি আবার স্কুলে যেতে পারতাম। পড়ালেখা চালিয়ে যেতে পাড়তাম।
গাঁড়াদহ ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সভাপতি মোঃ আব্দুল মান্নান সমাজের সকল বিত্তবান ব্যক্তিদেরকে এগিয়ে এসে শিশু সুমাইয়াকে  সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার আহবান জানান।
গাঁড়াদহ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ইয়াকুব আলী আকন্দ বলেন,গত  এক বছর ধরে যক্ষা রোগে আক্রন্ত হয়ে মো: সায়েম আলী ফকির শয্যাশায়ী হয়ে পড়েছেন। তার ৪ মেয়ে তার কোনো পুত্র সন্তান নেই। এরমধ্যে বড় মেয়ের বিয়ে হয়ে গেছে। সে গার্মেন্টস শ্রমিক স্বামী-সন্তান নিয়ে ঢাকায় থাকে। মেঝ মেয়ে মারা গেছে। ৩য় মেয়ে শারীরিক প্রতিবন্ধী। ৪র্থ মেয়ে সুমাইয়া পাশের ব্র্যাক স্কুলে ৪র্থ শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করেছে।
এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: কামরুজ্জামান বলেন, আমাদের তরফ থেকে সরকারিভাবে যতটুকু সম্ভব  তাকে  সার্বিক সহযোগিতা করা হবে। এছাড়া বাড়িঘর না থাকলে বাড়িঘরসহ সুমাইয়াকে আবারও স্কুলে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে।###


এ জাতীয় আরো খবর
Tech Support By Nagorikit.Com