বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০২:২৭ পূর্বাহ্ন

শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রধানমন্ত্রীর উপহার– তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী

প্রতিনিধির নাম:
  • আপডেট করা হয়েছে: রবিবার, ২৯ মে, ২০২২
  • ২০৮ দেখা হয়েছে:

নিজস্ব প্রতিবেদক:: ২৯মে ২০২২,রবিবার।
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন,শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার মানিকগঞ্জ বাসীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর এক অন্যন্য উপহার ।আমরা আশা করছি বাংলাদেশ সেনা বাহিনীর মাধ্যমে খুব দ্রæত এই আইটি ট্রেনিং সেন্টার এবং নির্মাণ কাজ শেষ হয়ে যাবে এবং দুই বছরের মধ্যে এখানে আমরা কার্যক্রম শুরু করবো। এখান থেকে প্রতিবছর এক হাজার তরুণ-তরুণী প্রশিক্ষণ নিয়েতাদেও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে পারবে । এই তরুণ –তরুণীরা মানিকগঞ্জের প্রত্যান্ত অঞ্চলে বসে ইউরোপ-আমেরিকা বিভিন্ন মার্কেট প্লেসে কাজ করে ডলার আয় করবে। উদ্যোক্তা হিসাবে আত্মপ্রকাশ করবে।
রবিবার (২৯ মে) দুপুরে মানিকগঞ্জের ঘিওরে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং ও ইনকিউবেশন সেন্টারের ভিত্তি প্রস্তুর স্থাপন শেষে ঘিওর ডিএন উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এক সমাবেশে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথাগুলোা বলেছেন।

 

 

 

প্রতিমন্ত্রী পলক আরো বলেছেন শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশে তরুণরা আর জব সিকার নয় , জব ক্রিয়েটর হিসাবে নিজেদের প্রতিষ্ঠা করবে। ডলার আয়ের জন্য এখন আর বিদেশে পাড়ি দেয়ার প্রয়োজন নেই। এটাই শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল। বাংলাদেশ এখন দক্ষিন এশিয়ার উদীয়মান অর্থনৈতিক শক্তি, কাজেই বাংলাদেশকে শ্রীলংকা –পাকিস্তান বা অন্য কোন ব্যর্থ রাষ্ট্রের সাথে তুলনার সুযোগ নেই।
আগামী ২৫ সালের মধ্যে ৩০ লাখ কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবো এবং ৫ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয় করবো আইসিটি সেক্টর থেকে।
প্রতিমন্ত্রী অরো বলেন,মেধা ও প্রযুক্তি শক্তিকে কাজে লাগিয়ে দেশের তরুণরা চাকরি করবে না চাকরির ক্ষেত্র তৈরি করবে । দেশের তরুণদেও উদ্যোক্ততায় ও আত্মনির্ভর শীল হতে পারে । সেজন্য প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয় এর ব্রেন চাইল্ড শেখ কামাল আইসিটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার ,স্কুল অব ফিউচার ,ডিজিটাল এডুটেইনমেন্ট সেন্টার সহ দেশে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। আগামীতে আমাতের মেধাবী তরুণরা চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের প্রযুক্তি রোবটিক্র , আইওটি,সাইবার,সিকিউরিটি টুলস তৈরি করে বিদেশে রপ্তানী করবে । সরকার সেই সুযোগ সুস্টি করে দিতে নিরলস কাজ করছে। তাই প্রত্যস্ত গ্রামাঞ্চলগুলোকে ফাইবার ক্যাবলের আওতায় আনা হচ্ছে। ওয়ালটন-সনির‌্যাংগস-সামস্যাং-নকিয়াসহ বিভিন্ন দেশি-বিদেশি প্রতিষ্ঠান এখন হাই-টেক পার্ক গুলোতে ল্যাপটপ,মোবাইল ফোন,রেফ্রিজারেটর,টেলিভিশন,এয়ার কন্ডিশনার(এসি),হোম এন্ড কিচেন এপ্লায়ে¯েœস,এমন কি অত্যাধুনিক ইলেক্ট্রনিক ভেইকল তৈরি করতে যাচ্ছে।
প্রতিমন্ত্রী পলক আরো বলেছেন, প্রতি বছর এখান থেকে আইটি সেক্টরে এক হাজার ছেলে-মেয়ের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করতে পারবো, গত ১৩ বছরে ২০ লাখ কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে আইসিটি সেক্টরে। দেশে সাড়ে ৬ লাখ আইসিটি ফ্রিল্যান্সার সাড়ে ৩ লাখ ই-কমার্স ও হার্ডওয়ার সফটওয়ার তৈরি হয়েছে আইটি সেক্টরে। প্রতি বছর এখান থেকে ১ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার এক্সপোর্ট করেছি আইসিটি সেক্টর থেকে।

প্রতিমন্ত্রী পলক আরো বলেছেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গত তিনবারের মতো আবারও নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনলে বাকি যে সমস্যাগুলো আছে সেই সমস্যার সমাধান করে বাংলাদেশকে একটি আধুনিক স্মার্ট ও উদ্ভাবনের দিকে নিয়ে যেতে পারবো।

 

 

শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং ও ইনকিউবেশন সেন্টারের ভিত্তি প্রস্তুর স্থাপন অনুষ্ঠানের সভাপতি মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক এ এম নাঈমুর রহমান দুর্জয় বলেছেন,প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা আর আমদানী কারক দেশ থাকতে রাজি নই , আমাদের এখন রপ্তানি কারক দেশ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করতে হবে। দেশে এখন বিনিয়োগ সহায়ক পরিবেশ বিরাজ করছে। পাশাপাশি সরকারী-বেসরকারী অংশীদারিত্বের মাধ্যমে কাজ করার সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে। আমরা বিশ^াস করি মানিকগঞ্জে এই আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপনের পর বৃহৎ পরিসরে হাই টেক পার্কও স্থাপন করা হবে । তাই সকল জনগন ও নেতাকর্মীদের কাছে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া চেয়েছেন সংসদ সদস্য ও জাতীয় ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক আলহাজ¦ এ এম নাঈমুর রহমান দুর্জয় ।

 

 

মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক এ এম নাঈমুর রহমান দুর্জয় এর সভাপতিত্বে এছাড়া বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ ডিজেল প্ল্যান্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ মো: রফিকুল ইসলাম,শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপন(১১ জেলা) প্রকল্পের পরিচালক এ.কে.এম আব্দুল্লাহ খান, জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফ, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান, লার্নিং এন্ড আর্নিং প্রকল্পের পরিচালক মো: হুমায়ন কবির, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ( গ্রেড-১) বিকর্ণ কুমার ঘোষ,জেলা পরিষদের প্রশাসক ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাড: গোলাম মহীউদ্দীন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: হামিদুর রহমান,উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল আলীম মিন্টু প্রমূখ।

আর্টিকেলটি শেয়ার করুন:

এই ক্যাটাগরির আরো খবর
© All rights reserved ©
themesba-lates1749691102