Logo
ব্রেকিং :
নাগরপুরে খেজুর রস আহরণে ব্যস্ত গাছিরা টাঙ্গাইলে আশ্রয়ণের ঘরে ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিল, দিশেহারা ৪০ পরিবার ধানের বাজারমূল্যে খুশি কৃষক, পরিবারে উৎসব জ্বলছে আগুন পুড়ছে কাঠ, ইটের ভাটায় সর্বনাশ নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বিশ্ব মানবাধিকার দিবস পালন উপলক্ষে টাঙ্গাইলে মহিলা পরিষদের সংবাদ সম্মেলন নেত্রকোনায় ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল নাগরপুরে আওয়ামীলীগ নেতা হিমু’র উদ্যোগে বড় পর্দায় বিশ্বকাপ ফুটবল দেখার ব‍্যবস্থা গোয়ালন্দ উপজেলা কৃষকলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত  উন্নয়নের জন্য নৌকায় ভোট চাইলেন প্রধানমন্ত্রী নদী ভাঙ্গন রোধে দুই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প একনেকে পাশ হলে কাজ শুরু হবে– -দূর্জয়
নোটিসঃ
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয়

চট্টগ্রামে মোরশেদ খানসহ ধানের শীষের ৮জনের মনোনয়ন বাতিল

রিপোর্টার / ২০৯ বার
আপডেট রবিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৮

কালের কাগজ ডেস্ক :০২ ডিসেম্বর,রবিবার । ।

বিএনপির শীর্ষ তিন নেতাসহ ধানের শীষের আটজনের মনোনয়নপত্র বাতিল বলে ঘোষণা দিয়েছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চট্টগ্রামের ১৬ সংসদীয় আসনের দুই বাছাই কমিটি।

রোববার চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবদুল এবং জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. ইলিয়াস হোসাইনের পরিচালনাধীন বাছাই কমিটি প্রার্থীদের তথ্য-উপাত্ত যাচাই শেষে ৪২ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল বলে ঘোষণা করেন।

অবৈধ বলে ঘোষিত হওয়া বিএনপির প্রার্থীরা হলেন- গিয়াসউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও তার ছেলে সামির কাদের চৌধুরী, চার দলীয় জোট সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রী এম মোরশেদ খান, বিএনপির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরী, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মীর মো. হেলাল উদ্দিন এবং আবদুল আলীম, আবু আহমেদ হাসনাত, মোস্তফা কামাল পাশা ও এরশাদ উল্লাহ।

তবে এসব আসনের প্রত্যেকটিতে বিএনপির বিকল্প প্রার্থী আছে। বাছাইয়ের সময় স্বতন্ত্র হিসেবে থাকা একজন আওয়ামী লীগ নেতার মনোনয়নপত্র বাতিল হলেও মহাজোটের নৌকা প্রতীকের কোনো প্রার্থীর মনোনয়নপত্রে এ পর্যন্ত ভুল খুঁজে পাননি চট্টগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

গিয়াসউদ্দিন কাদের চৌধুরী চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) ও চট্টগ্রাম-৭ (রাঙ্গুনিয়া ও বোয়ালখালী একাংশ) আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। কিন্তু দলীয় মনোনয়নের চিঠি জমা দিতে না পারায় এবং ঋণখেলাপি হওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড-কাট্টলী) আসনে প্রার্থী হয়েছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরী। ঋণখেলাপী হওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড-কাট্টলী) আসনে দলের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র হিসেবে দাঁড়ানো আবদুল্লাহ আল বাকের ভূঁইয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এছাড়া আরও ৫ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ মোট ১৩টি মনোনয়নপত্র বাতিল হয়।

চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে সামির কাদেরের ঋণখেলাপিতে মনোনয়নপত্রও বাতিল হয়েছে।

চট্টগ্রাম-৮ (চান্দগাঁও-বোয়ালখালী) আসনে এম মোরশেদ খানের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে ঋণখেলাপি হয়ে।

চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে একইভাবে ঋণখেলাপি হওয়ায় মীর মো. হেলাল উদ্দিনের মনোনয়ন বাতিল হয়।

চট্টগ্রাম-৭ আসনে আবু আহমেদ হাসনাত এবং আবদুল আলীমের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে ঋণখেলাপি দায়ে।

সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত চট্টগ্রামের ১৬টি আসনের ৪২ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এ সময়ে সঠিক ছিল ১০৬ প্রার্থীর তথ্য-উপাত্ত।

চট্টগ্রাম মহানগর ও আশপাশের ছয়টি আসনে মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন ৭৯ প্রার্থী। তাদের মধ্যে ৫৪ জনকে বৈধ ঘোষণা করেছেন রিটার্নিং অফিসার। ২২ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণার পাশাপাশি ৩ জনকে রেখেছেন বিবেচনার জন্য।

চট্টগ্রাম জেলার ১০টি আসনে মনোনয়ন জমা দেওয়া ১০১ প্রার্থীর মধ্যে ৮১ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা হয়েছে। অন্য ২০ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে বিভিন্ন কারণে। এর মধ্যে ঋণখেলাপি, কারো বিদ্যুৎ ও টেলিফোন বিল বকেয়া এবং সাজাপ্রাপ্ত আসামি হওয়ার কারণে রয়েছে ক’জনের।

কালের কাগজ/প্রতিবেদক/জা.উ.ভি


এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com