Logo
নোটিসঃ
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব এ.এম নাঈমূর রহমান দূর্জয় ,সম্পাদক ও প্রকাশক মো: জালাল উদ্দিন ভিকু,সহ-মফস্বল সম্পাদক মো: জাহিদ হাসান হৃদয়

মানিকগঞ্জে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের মোবাইল নম্বর ক্লোন করে চাঁদা দাবী

রিপোর্টার / ৩১ বার
আপডেট বুধবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : ০৫ ডিসেম্বর,বুধবার ।
মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের মোবাইল নম্বর ক্লোন করে উপজেলার বিভিন্ন মাধ্যমিক স্কুলে ল্যাপটপ দেওয়ার কথা বলে চাঁদাদাবীর ঘটনা ঘটেছে। ইতিমধ্যে উপজেলার পাশ্ববর্তী জয়রা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ওই চাঁদাবাজের খপ্পরে পরে ৮ হাজার টাকা দিয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে ওই চক্রটি প্রথমে ফোন করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের পরিচয় ব্যবহার করেছেন বলে ভুক্তভোগী অভিযোগ করেছেন। এঘটনার প্রেক্ষিতে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন সরদার মানিকগঞ্জ সদর থানায় একটি জিডি করেছেন।
এদিকে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ সালামগীর হোসেন জানালেন, সোমবার সকাল থেকে দুপুর নাগাদ তার উপজেলার প্রায় ১৫/২০টি স্কুলে ওই প্রতারক চক্রটি ল্যাপটপ দেওয়ার কথা বলে চাঁদা দাবী করে। প্রতারকরা একটি স্কুল ছাড়া বাকী স্কুল গুলোতে সফল হয়নি বলে জানান।
ভুক্তভোগী জয়রা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আওলাদ হোসেন জানান, সোমবার দুপুরের দিকে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার পরিচয় দিয়ে ০১৭২২৬০৫৯৭৮ নম্বর থেকে তার মোবাইলে কল আসে। পরে তাকে জানানো হয় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আপনার সাথে কথা বলবেন। পরণেই উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সালামগীরের ০১৭১১৩৬৯১৮৪ মোবাইল নম্বর থেকে কল করে সরকারী ভাবে একটি ল্যাপটপ এসেছে বলে জানান। এজন্য তাকে বিকাশের ৮ হাজার টাকা পরিশোধ। আর বিকাশ নম্বর (০১৭৩৮০৩৭৮৪৫) টাকা পরিশোধের তাগিদ দেওয়া হয়। সে কথা মোতাবেক দুপুর ২টার দিকে তিনি ওই বিকাশ নম্বর ৮ হাজার টাকা পরিশোধ করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে ল্যাপটপটি আনতে গেলে ঘটনাটি জানাজানি হয়।
পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ভুক্তভোগীর সাথে এবং মাধ্যমিক অফিসারের সাথে কথা বলেন। ওই ঘটনাটি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের মধ্যে জানাজানি হলে পযায়ক্রমে করে প্রায় ১৫/২০টি মাধ্যমিক স্কুলের প্রধানরা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে জানান (০১৭১১৩৬৯১৮৪) নম্বর থেকে তাদের কাছে ল্যাপটপ দেওয়ার কথা বলে ৮ হাজার করে টাকা চাওয়া হয়। কিন্তু তাদের কথা বার্তায় সন্দেহজনক মনে হলে তারা টাকা দেয়নি বলে জানান।
মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের নম্বর কোন ও তার নাম ব্যবহার করে টাকা আদায়ের ঘটনার প্রেক্ষিতে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন সরদার সদর থানায় একটি জিডি করেছেন।
মানিকগঞ্জ সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা( ওসি) রকিবুজ্জামান নির্বাহী অফিসারে জিডি করার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
কালের কাগজ/প্রতিবেদক/জা.উ.ভি


এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com